স্বেচ্ছাসেবীদের স্প্রে মেশিন উপহার দিলেন ব্যবসায়ী নেতা আবু সৈয়দ

282
॥ ইকবাল হোসেন ॥
বর্তমানে সারাবিশ্বে মহামারীতে রুপ নিয়েছে নোভেল করোনা ভাইরাস। ইতিপূর্বে বাংলাদেশের ৬৩ জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগী সনাক্ত হলেও একমাত্র রাঙামাটি জেলায় এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত রোগী সনাক্ত হয়নি। আর এই পরিস্থিতিতে জেলা শহরের বিভিন্ন এলাকায় স্বেচ্ছাসেবক ও  স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে নিজ নিজ এলাকা জীবাণুমুক্ত রাখতে ১০টি স্প্রে মেশিন উপহার দিয়েছেন বৃহত্তর বনরুপা ব্যবসায়ী কল্যাণ সমবায় সমিতি লিঃ এর সভাপতি মো. আবু সৈয়দ।
শুক্রবার বিকেলে ব্যবসায়ী নেতা মো. আবু সৈয়দ তার কাঁঠালতলীস্থ নিজ বাড়ি হতে স্বেচ্ছাসেবীদের হাতে উক্ত স্প্রে মেশিন তুলে দেন।
স্প্রে মেশিন পাওয়া ১০টি এলাকা ও সংগঠনগুলো হলোঃ ১. এডিসি কলোনি, ২. এসপি অফিস নীচের এলাকা, ৩. ভেদভেদীর তারুণ্য স্পোর্টিং ক্লাব, ৪. তবলছড়ির মাস্টার কলোনি, ৫. বিজিবি রোড এলাকা, ৬. এসপি বাংলো নীচের এলাকা, ৭. সিলেটি পাড়া, ৮. ইয়ুথ মোস্তফা কামাল ফাউন্ডেশন, ৯. রাঙামাটি ব্লাড ব্যাংক ১০. স্বপ্নযাত্রী ফাউন্ডেশন।
উক্ত স্প্রে মেশিন উপহার দেয়ার বিষয়ে বৃহত্তর বনরুপা ব্যবসায়ী কল্যাণ সমবায় সমিতি লিঃ এর সভাপতি মো. আবু সৈয়দ বলেন, রাঙামাটির সাংসদ জননেতা দীপংকর তালুকদার এমপি মহোদয়সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নিরলস কার্যক্রম এবং স্থানীয় প্রশাসন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও বাংলাদেশ পুলিশের কঠোর অবস্থানের ফলে সারা বাংলাদেশের মধ্যে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা এখন পর্যন্ত করোনা মুক্ত। তাই তিনি স্থানীয় প্রশাসন ও নিরাপত্তা বাহিনী কঠোর অবস্থানে থেকে রাঙামাটিকে করোনা মুক্ত রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন এ পরিস্থিতিতে যেসকল স্বেচ্ছাসেবীরা নিজেদের এলাকাকে জীবাণুমুক্ত রাখতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে তাদেরকে উৎসাহ দিতে আমি বিভিন্ন এলাকা ও সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবকদের ১০টি স্প্রে মেশিন উপহার দিলাম।
তিনি আরো বলেন, মহান সৃষ্টিকর্তার কৃপায় এখন পর্যন্ত আমাদের জেলায় করোনা ভাইরাসের সংক্রামণ দেখা দেয়নি তাই আমি সর্বদা সৃষ্টিকর্তার নিকট এই প্রার্থনা করি তিনি যেন আমাদের করোনা মুক্ত রাখেন।
পরিশেষে তিনি বলেন, সর্বোপরি জনসাধারণের সার্বিক সহযোগীতার ফলেই আমাদের জেলা এখনো পর্যন্ত করোনা ভাইরাস মুক্ত। তাই রাঙামাটি জেলার এই করোনা মুক্ত অবস্থান ধরে রাখতে সরকারের নির্দেশনা মেনে সকলকে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করতে ও বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাসা থেকে বাহির না হওয়ার অনুরোধ করেন। আর যদি বাসা থেকে বাহির হতেও হয় তবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করার আহ্বান জানান।