অবশেষে রাঙামাটিতে জমে উঠতে শুরু করেছে পশুর হাট ॥ দাম সহনশীল

633

॥ মঈন উদ্দীন বাপ্পী ॥

অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে অবশেষে পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে রাঙামাটিতে জমে উঠতে শুরু করেছে কোরবানী পশুর হাট। এবারে রাঙামাটি শহরে প্রধান পশুর হাট বসেছে পুরাতন বাস স্টেশন ট্রাক টার্মিনাল এলাকায়।

এছাড়া শহরের রিজার্ভ বাজার শুটকি পট্টি এলাকা এবং কলেজ গেইট এলাকায়ও ছোট পরিসরে পশুর হাট বসেছে। দিন যতই যাচ্ছে এসব হাটে পশু বেচা-কেনা ততই বাড়ছে বলে জানান পশু বিক্রেতারা। মঙ্গলবার শহর ঘুরে দেখা গেছে ক্রেতারা বিভিন্ন হাট ঘুরে দেখে শুনে সাধ এবং সাধ্যর মধ্যে পছন্দের পশুটি ক্রয় করছে।

জেলায় এবারে পশু সংকট পড়বে না মন্তব্য করছেন ব্যবসায়ীরা। তাদের অভিমত জেলার মানুষের চাহিদার চেয়ে এবারে পশুর সংখ্যা বেশি। তাই গত বছরের তুলনায় এবারে পশুর দাম অনেক কম। সবাই যার যার পছন্দনুযায়ী সাধ্যর মতে হাট থেকে কিনে নিচ্ছে পশু।

এদিকে বাজার ব্যবস্থা সুষ্ঠু রাখতে মঙ্গলবার মোবাইল কোট পরিচালনা করেছে রাঙামাটি জেরা প্রশাসন। এ ছাড়া পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও পুলিশি টহল।

এদিকে ক্রেতারা খুব খুশি গতবারের তুলনায় এবারে পশুর দাম অনেক কম। নিরাপদে পশু বেচা-কেনা এবং জাল টাকা সনাক্ত করতে রয়েছে হাটবাজারগুলোতে ব্যবস্থা রয়েছে।

পুরাতন বাস স্টেশন পশুর হাট বাজারে সরেজমিনে গেলে কথা হয় গরু ব্যবসায়ী জাফরের সাথে। তিনি জানান, গতবারের তুলনায় এবারে পশুর দাম প্রায় ২০ভাগ কম। বাজারে চাহিদার তুলনায় অনেক গুরু সংগ্রহ করা হয়েছে।
এ ব্যবসায়ী জানান, এ হাটে সর্বোচ্চ ১ লক্ষ ২৫ হাজার থেকে শুরু করে ৩০হাজার টাকার মধ্যে গরু পাওয়া যাচ্ছে। খাসী ছাগল ৭হাজার থেকে শুরু করে ৩৫হাজার টাকায় পাওয়া যাচ্ছে বলে এ ব্যবসায়ী জানান।

ট্রাক টার্মিনাল হাটে গরু কিনতে আসা ক্রেতা  মো. হানিফ জানান, খুব ভাল লাগছে গতবারের তুলনায় এবারে পশুর দাম সাধ্যর মধ্যে রয়েছে। আশা করছি আজকে পছন্দের পশুটিকে কিনে নিয়ে যাবো।

ক্রেতা জব্বার জানান, পছন্দের গরুটি কিনে বাড়িতে যাচ্ছি। তিনি জানান, তার পছন্দের গরুটির দাম পড়েছে ৪৫হাজার টাকা ট্রাক টার্মিনাল পশুর হাট বাজারের ইজারাদার সাওয়াল উদ্দীন জানান, গত কয়েকদিন পশু বেচাকেনা না হলেও মঙ্গলবার (২৯ আগস্ট) ১২০টি গরু বিক্রি হয়েছে। এ ইজারাদার জানান, বর্তমানে এ পশুর হাটে তিন হাজার গুরু এবং তিনশোর অধিক ছাগল রয়েছে। প্রতিটি পশু কিনতে হাজারে ৬-৭টাকা হাসিল নেওয়া হচ্ছে। আগামীকাল বুধবার (৩০ আগস্ট) থেকে পশু বেচা-বিক্রি বাড়বে বলে আশা করছেন এ ইজারাদার।