অবশেষে শপথ গ্রহণ করলেন ভূষণছার নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান

433

 

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

নানা দ্বিধা-দ্বন্দ্ব ও অনিশ্চয়তার অবসান ঘটিয়ে নির্বাচিত হওয়ার ছয়মাস পর শপথ পেয়েছেন রাঙামাটির বরকল উপজেলার ৪নং ভূষণছড়া ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ।

সোমবার বিকেলে রাঙামাটি জেলা প্রশসকের কার্যালয়ে নবনির্বাচিত এই চেয়ারম্যানকে শপথ বাক্য পাঠ করান জেলাপ্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান। এই শপথের মধ্য দিয়ে ভূষণছড়া ইউপিতে দীর্ঘদিন ধরে বিরাজ করা এক অস্বস্থিকর অনিশ্চয়তার অবসান ঘটলো। এর আগে বিষয়টি গ্যাজেট আকারে প্রকাশ করা হয়।

নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক প্রকাশ কান্তি চৌধুরী, সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার মোছাৎ সুমনী আক্তার, জেলা প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ এবং বরকল উপজেলার আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দসহ স্থানীয় অধিবাসীরা।

এর আগে গত ২৮ নভেম্বর ওই ইউপির নব নির্বাচিত পাঁচজন সদস্য শপথ গ্রহণ করেন। তবে ওই ইউপি আরো সাতজন সদস্য এখনও শপথ নেননি। ২৮ নভেম্বর শপথ গ্রহণ করেন ৮ নং ওয়ার্ড সদস্য আব্দুল জলিল, ৬ নং ওয়ার্ডের সদস্য রুহুল আমিন, ৭ নং ওয়ার্ডের আবু ছৈয়দ, ৫ নং ওয়ার্ডের মোঃ সবুর তালুকদার এবং সংরক্ষিত ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডের মমতাজ সিদ্দিক। ওইদিন বাকি ৭জন সদস্য উপস্থিত না থাকায় তাদের শপথ গ্রহণ হয়নি বলে জানায় কর্তৃপক্ষ। সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করান রাঙামাটি সদর উপজেলা নির্বাহি অফিসার মোছাম্মৎ সুমনা আক্তার।

প্রসঙ্গত, গত ৪ জুন বরকল উপজেলার ভূষণছড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে চেয়্যারম্যান প্রার্থী ছিলেন মোঃ মামুনুর রশিদ মামুন এবং প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন দিলীপ কুমার চাকমা। এর মধ্যে দিলীপ কুমার চাকমাকে বিপুল ভোটে হারিয়ে মামুনুর রশিদ নির্বাচিত হন। এতে ১২ জন ওয়ার্ড মেম্বারের মধ্যে ৫ জন বাঙালি এবং ৭জন উপজাতি নির্বাচিত হন।

নির্বাচনের পর চেয়ারম্যান পদে পরাজিত প্রার্থী দিলীপ কুমার চাকমা নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে পুণঃনির্বাচনের দাবিতে আদালতে রীট করায় নির্বাচন কমিশন নির্বাচিত চেয়ারম্যানের গেজেট প্রকাশ করেনি। পরবর্তিতে গত ১০ নভেম্বর নির্বাচিত ওয়ার্ড সদস্যদের গেজেট প্রকাশ করা হলেও তাদের শপথ প্রদান করা হয় ২৮ নভেম্বর। কিন্তু বিষয়টি আদালতের এখতিয়ারাধীন থাকায় সে সময় শপথ নিতে পারেননি নির্বাচিত চেয়ারম্যান।