আব্দুল হালিমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ব্যবসায়ী নেতাদের আল্টিমেটাম

358

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥
ব্যবসায়ি নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে কুরুচিকর মন্তব্য করাসহ মিথ্যা অভিযোগ উত্থাপন করে জনমনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করায় রাঙামাটি শহরের রিজার্ভ বাজারের জনৈক বাসিন্দা আব্দুল হালিম ও তার ছেলে আব্দুল্লাহ আল হামদানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রশাসনকে এক সপ্তাহের আল্টিমেটাম দিয়েছে রিজার্ভ বাজার ব্যবসায়ি কল্যাণ সমিতির নেতৃবৃন্দ।

সোমবার নিজস্ব কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নেতৃবৃন্দ বলেন, আগামী ৭দিনের মধ্যে আবদুল হালিম ও ছেলে আবদুল্লাহ আল হামদানের বিরুদ্ধে প্রশাসন ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হলে নিউ সর্বস্তরের ব্যবসায়ীদের নিয়ে দোকান-পাট বন্ধসহ বৃহত্তর কর্মসূচী পালন করবে রিজার্ভ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, নিউ রাঙামাটি রিজার্ভ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি হাজী আনোয়ার মিয়া বানু, সহ সভাপতি মোঃ হারুন, বিমল বড়ুয়া, যুগ্ন সম্পাদক মোঃ সালাহ উদ্দিন, আব্দুল শুক্কুর, কোষাধ্যক্ষ আকতার কামাল, সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক সাব্বির আহমেদ, সদস্য আব্দুল আজিজ, মোঃ দিদার, ও মোঃ ইব্রাহীম প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সমিতির সহ সভাপতি মোঃ হারুন বলেন, রিজার্ভ বাজার রাঙামাটি জেলার একটি ঐতিহ্যবাহী পুরোনো বাজার। আর এই বাজার এলাকায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষাসহ শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রেখে ব্যবসায়ীরা যাতে ব্যবসা বাণিজ্য পরিচালনা করতে পারে সেজন্য রিজার্ভ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি শুরু থেকে একনো পর্যন্ত অনবদ্য ভূমিকা পালন করে আসছে।

ব্যবসায়ীদের মধ্যে লেনদেন, মালিক ভাড়াটিয়াদেরর মধ্যে বিভিন্ন সমস্যা, দোকানের মালিকানা বিরোধ ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ে ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি শান্তিপূর্ণ ও ন্যায়গত সমস্যা সমাধান করে ব্যবসায়ী মহলের প্রশংসা অর্জন করেছে। কিন্তু কিছুদিন পূর্বে জৈনক আবদুল হালিমের পুত্র বধু (নুর বেগম) তার স্বামীর পৈত্রিক দোকানের ভাড়ার অংশ হিসেবে দাবী করে সমিতিতে একটি আবেদন দায়ের করেন। আবেদনে তিনি তার স্বামীর পৈত্রিক দোকান/বাসা ভাড়ার নায্য অংশ তার শ্বশুর হতে দাবী করেন।

কারণ তিনি তিন কন্যা সন্তান নিয়ে মানবেতন জীবন যাপন করছেন। আবেদনের সত্যতা যাচাই করে বিষয়টি শান্তিপূর্ণ ও ন্যায়সংগত ভাবে সমাধানের প্রচেস্টায় অংশ হিসেবে উভয় পক্ষকে সালিশি সভায় উপস্থিত থাকার জন্য সমিতির পক্ষ থেকে বার বার অনুরোধ জানানো হয়। কিন্তু অনুরোধ করা সত্বেও ২য় পক্ষ আবদুল হালিম সমিতির সমঝোতা চেষ্টায় কোন রকম সহযোগিতা করে নাই।

এই অবস্থায় সমিতির নেতৃবৃন্দ গত বৃহস্পতিবার (৪ জুন) চেংঙ্গীমুখ এলাকায় ব্যবসায়ীদের সামাজিক দুরত্ব ও পণ্যের দাম ও মান নিশ্চিতের ব্যাপারে প্রচারনা চালানোর সময় চেংঙ্গীমুখ এলাকায় পৌঁছালে আবদুল হালিম ও তার ছেলে আবদুল্লাহ আল হামদান ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হাজী আনোয়অর মিয়া বানু, যুগ্ন সম্পাদক আবদুল শুক্কুর ও অন্যান্য নেতৃবৃন্দকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারতে তেড়ে আসে। ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ঘটনার হতভম্ব হয়ে যান।

পরে সাধারণ ব্যবসায়ীরা এগিয়ে এলে তারা সটকে পড়েন। কিন্তু দুঃখের বিষয় ঘটনাটিকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য আবদুল হালিম কোতয়ালী থানায় সমিতির সভাপতি হাজী আনোয়ার মিয়া বানু, যুগ্ম সম্পাদক আবদুল শুক্কুর ও সিনিয়র ব্যবসায়ী হাজী জানে আলমের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ দায়ের করেন। পরে আবারো মেয়েকে দিয়ে প্রেস ক্লাবে প্রকৃত সত্য গোপন করে বিভিন্ন মনগড়া মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ সম্মেলন করে।

এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ব্যবসায়ি নেতৃবৃন্দ বলেন, আগামী ৭দিনের মধ্যে আবদুল হালিম ও ছেলে আবদুল্লাহ আল হামদানের বিরুদ্ধে প্রশাসন ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হলে নিউ সর্বস্তরের ব্যবসায়ীদের নিয়ে দোকান-পাট বন্ধসহ বৃহত্তর কর্মসূচী পালন করবে রিজার্ভ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি।