আর মাত্র দু’দিন : কে হচ্ছেন বান্দরবান ও লামার পৌরপিতা

460

elic

বান্দরবান প্রতিনিধি , ২৭ ডিসেম্বর ২০১৫, দৈনিক রাঙামাটি : বান্দরবান ও লামা পৌর এলাকার জনগণের প্রত্যাশিত দিন ৩০ শে ডিসেম্বর আসতে আর মাত্র ৩ দিন বাকি। এখন শুধুই জল্পনা কল্পনা চলছে কে হচ্ছেন বান্দরবান ও লামা পৌরবাসীর অভিবাবক তথা নতুন পৌরপিতা। পোষ্টারে পোষ্টারে ছেয়ে গেছে রাস্তাঘাট, পাড়া মহল্লা এমনকি বৈদ্যুতিক পোল। ঘরে ঘরে গিয়ে ভোটারদের দোয়া কামনা করছেন প্রার্থীরা। প্রার্থীরা সবাই নিজেকে নিঃস্বার্থ, জনদরদী বলে দাবি করছেন। তবে নির্বাচনের পরেই জনগণ দেখবে কে কত জনদরদী। সবকিছু বিচার বিশ্লেষণ করে জনগণ কল্পনা করার চেষ্টা করছে কে হচ্ছেন আগামী দিনের পৌরপিতা।

বান্দরবান পৌর সভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী হলেন জেলা ক্রিড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইসলাম বেবি, আর বিএনপির মনোনীত প্রার্থী জেলা বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক এবং বর্তমান পৌর মেয়র জাবেদ রেজা। এদিকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হলেন সাবেক পৌর মেয়র এডভোকেট মিজানুর রহমান বিপ্লব। পক্ষান্তরে লামা পৌর নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী হলেন বর্তমান পৌর মেয়র আমির হোসেন আমু, আওয়ামীলীগের প্রার্থী মোঃ জহির উদ্দিন এবং জাতীয় পার্টি (মঞ্জুর) প্রার্থী হলেন সাংবাদিক ফরিদ উদ্দিন। তবে ধারণা করা হচ্ছে, লামার নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীর মধ্যেই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে।

এদিকে এবার বান্দরবানে আওয়ামী লীগের মধ্যে কোন কোন্দল নেই। সকল নেতা কর্মীরা একযোগে কাজ করছেন তাদের মনোনীত প্রার্থীকে জয়যুক্ত করার জন্য। অপরদিকে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী জাবেদ রেজা রয়েছেন বহুবিদ সমস্যায়। জেলা বিএনপির একাধিক নেতা অন্য প্রার্থীর পক্ষে জয়গান গেয়ে যাচ্ছে। এরমধ্যে জেলা বিএনপির সহসভাপতি জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি আলহাজ্ব আবদুল শুক্কুর, জেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক মুছা, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ফরিদ সওদাগর, অপর সহ সাংগঠনিক সম্পাদক জেলা বিএনপির সভাপতির নিকটতম আতœীয় জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ব্রিগেডিয়ার মুজিবর রশিদ, বিএনপির যুব বিষয়ক সম্পাদক মশিয়ুর রহমান মিঠুন, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক দৌলতুল কবির খান সিদ্দিকী, পৌর বিএনপির সভাপতি নাসির উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, কৃষক দলের সভাপতি ইসলাম কোম্পানীসহ আরো ডজন খানেক সিনিয়ার নেতা বিরত রয়েছেন জাবেদের নির্বাচনী প্রচারণা থেকে।

জানা গেছে, তারা শুধু বিরতই থাকেনি বরং প্রকাশ্যে অপ্রকাশ্যে বিরোধীতা ও করছেন। সে কারনে বিএনপির প্রার্থী একরকম বেকায়দায় রয়েছেন। তার পরেও জাবেদ রেজা আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন জয়ী হওয়ার। অপরদিকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাবেক মেয়র এড. মিজানুর রহমান বিপ্লবের নিরব সমর্থকেরা আশাবাদী তাদের প্রার্থী জয়ী হওয়ার। প্রাথীদের আশাবাদ ও মাঠের অবস্থা বিশ্লেষণ করে সাধারণ মানুষ এখনও বুঝতে পারছে না কে হবেন তাদের ভবিষ্যৎ নেতা। তাই সবাই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন আগামী ৩০শে ডিসেম্বর কার গলায় বিজয়ের মালা উঠে তা স্বচক্ষে দেখার জন্য।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান