কঠোর লকডাউনে ক্রেতা শূন্য ঘিলাছড়ি সাপ্তাহিক হাট

330

।। নানিয়ারচর প্রতিনিধি ।।

করোনা প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনের ক্রেতা শূন্য উপজেলার ঘিলাছড়ি সাপ্তাহিক হাট। বৃহস্পতিবার সকালে সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ঘিলাছড়ি বাজারে আনারস, আম, কাঁঠাল ও কলাসহ সাপ্তাহিক এই পাহাড়ি হাটে এসেছে প্রচুর ফলমূল। কিন্তু বাজারে নেই পর্যাপ্ত ক্রেতা। ফলে দূর্ভোগে পড়েছে ফলফলাদি বিক্রি করতে আসা তিন শতাধিক কৃষক।

এসময় পুলিপাড়া এলাকার কলা ও আনারস বিক্রি করতে আসা অংশি মারমা (৪০) বলেন, আজকের বাজারে কোন ব্যবসায়ী আসেনি। বাগানে আনারস পেকে পচেঁ যাচ্ছে। লকডাউনের কারণে ক্রেতা না থাকায় যে ২/১জন ক্রেতা আছে তারা একদম কম মূল্য দিতে চাইছে। করোনার কারণে চরম ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে এই কৃষক। একই এলাকার শ্যামল মারমা জানান, ৫শত আনারস ও ৪কাদি কলা বাজারে আনতে যে গাড়ি ভাড়া খরচ হয়েছে ভাড়ার সেই টাকাটা পুষিয়ে তুলতে পারছেন না সে।

উপজেলার সয়ন্দর পাড়ার সঞ্জিব দেওয়ান জানান, বাজারে ক্রেতা একদমই নেই। প্রতি হাটে যেখানে ২ থেকে ৩শতাধিক ব্যবসায়ী আসে। কিন্তু আজ ৪ থেকে ৫জন ক্রেতা আছে। কিন্তু দাম একেবারেই কম দিচ্ছে। এবিষয়ে বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি জীবন্ত চাকমা বলেন, করোনায় লকডাউনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুধুমাত্র কাঁচা বাজার (তরকারী ও মৌসুমী ফল) হাটে তুলতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শতভাগ মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করা হয়েছে। সামাজিক দূরত্ব মেনে শুধুমাত্র নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ও কাঁচা পণ্য ক্রয় বিক্রয় করা হচ্ছে। এসময় বাজার চৌধুরী নিহার বিন্দু চাকমা ও ৪নং ইউপি সদস্য সোনা বিকাশ চাকমা প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।