কাউখালীর পোয়াপাড়া বিদ্যালয়ে জমি দান ঘিরে মহতী পূণ্যানুষ্ঠান

390

॥ কাউখালী প্রতিনিধি ॥

রাঙামাটি পার্বত্য জেলার কাউখালী উপজেলার ঐতিহ্যবাহি পুরান পোয়া পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নামে স্থানীয় এক ব্যাক্তি জমি দানকরণ দলিল হস্তান্তর উপলক্ষে এক ধর্মীয় মহতী পূণ্যানুষ্ঠান বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়।

এ উপলক্ষে সুইসাউ চৌধুরী ও তার স্ত্রী প্রয়াত পাই¤্রাসোং মারমার পরলোকিক মঙল কামনায় বাতসরিক ক্রিয়ানুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কচুঁখালী হেডম্যান পাড়া চাইন্দামুনি বৌদ্ধ বিহারের প্রধান ভিক্ষু ইন্দ্রাচারিয়া মহাথেরো। বিশেষ অতিথি ছিলেন এবং ধর্ম দেশনা প্রদান করেন বটতলী বৌদ্ধ বিহার অধ্যক্ষ সবিদা ভিক্ষু,নিছপাড়া শাক্যমুনি বৌদ্ধ বিহারের প্রধান ভিক্ষু জোতিকা ভিক্ষু। এতে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি উক্যজাই কার্বারী, বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক পূলক চাকমা, বিদ্যালয়ের নামে জমি দাতা প্রয়াত সুইচাইউ চৌধুরীর বড় ছেলে পোয়া পাড়া মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক চিংকিউ চৌধুরী, এবং প্রয়াতের ছোট ছেলে ঘাগড়া ইউনিয়ন ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সুইজাই প্রু চৌধুরী প্রকাশ ধুংশি,প্রয়াতের মেয়ে জামাই চাইঞোই চৌধুরী সহ বিভিন্ন বিহার হতে আগত ভিক্ষু ও দায়ক দায়িকা বৃন্দ এবং স্থানীয় বৌদ্ধ ধর্মালম্বীর লোকজন।

পরে ধর্মীয় মহতী পূণ্যানুষ্ঠান শেষে পুরান পোয়া পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নামে প্রয়াত সুইসাউ চৌধুরীর পরিবারের পক্ষ হতে বিদ্যালয়ের নামে মোট তেত্রিশ শতক জমি তার ছোট ছেলে সুইজাই প্রু চৌধুরী প্রকাশ ধুংশি জমির দলিল বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পুলক চাকমা ও সভাপতি উক্যজাই কার্বারীর হাতে তুলে দেন। জমির দলিল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কাউখালী উপজেলা প্রেস ক্লাব সহ-সভাপতি মো. ওমর ফারুক, বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক মো. রেজাউল করিম, শিক্ষিকা মুন্নি আক্তার, সহ শিক্ষক শিক্ষিকা বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য সদস্যা এবং অভিভাবক ও বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রী এবং এলাকার সুশিল সমাজের লোকজন।

অনুষ্টানে প্রয়াত সুইসাউ চৌধুরীর বড় ছেলে মাষ্টার চিংকিউ চৌধুরী বলেন, কাউখালী উপজেলার ৩নং ঘাগড়া ইউনিয়নের ৯৮ নং কচুঁখালী মৌজার ঐতিহ্যবাহি পুরান পোয়া পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৬৫ ইং সালে স্থাপিত হয়। তখন থেকে একটি টিনশেড চার কক্ষ বিশিষ্ট জরাজির্ণ (পাকাঁ) ভবনে বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্য্যক্রম চলে আসছিলো। বিদ্যালয়ের নামে তেমন কোন জমি ছিলনা বললইে চলে। সেই সময় ৯৮ নং কচুঁখালী মৌজার হেডম্যান ও ১৯৭৩ইং সালে রাঙামাটি ও বান্দরবানের সংসদিয় আসনের নির্বাচিত এমপি প্রয়াত চাথোয়াই রোয়াজার পরামর্শক্রমে আমার পিতা প্রয়াত শিক্ষানুরাগী সুইসাউ চৌধুরী ছিলেন এলাকার একজন সচেতন ব্যাক্তি তিনি তার রেকর্ডিয় জমি হতে এই এলাকার ছেলে মেয়ের শিক্ষার কথা ভেবে তেত্রিশ শতক জমি বিদ্যালয়ের নামে দান করার ঘোষনা দেন এর কিছুদিন পরে তিনি পরলোক গমন করেন।

এই বিদ্যালয়ের নামে তেত্রিশ শতক জমি দান করার পর ২০২০ইং সালে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অর্থায়নে, স্থানীয় সরকার প্রকৌশর অধিদপ্তর কাউখালী নির্মানকারী হিসাবে চাহিদা ভিত্তিক সরকারি প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসুচী (১ম পর্যায়) ৮৭,০১,৪৮৮,০০/০০ টাকা ব্যয়ে চার তলা বিশিষ্ট একটি পাকাঁ ভবন নির্মান করে দেন। যদিওবা ভবনের কাজ শেষ কিন্তু বিদ্যালয়ের ওয়াশরুম নির্মান কাজ ধীরগতিতে চলছে বলে বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকা ও ছাত্র ছাত্রীদের অনেক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে বলে বিদ্যালযের সংশ্লিষ্টরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।