কাপ্তাইয়ের ২৪ ঘন্টার মধ্যে অবৈধ সিড়ি সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ

493

॥ কাপ্তাই প্রতিনিধি ॥

কাপ্তাইয়ের নতুন বাজার এলাকায় যেসকল অবৈধ স্থাপনার মধ্যে সিড়ি রয়েছে এমন সকল সিড়ি আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে নিজ দ্বায়িত্বে অপসারণের নির্দেশ দিয়েছেন কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুল আলম। এছাড়াও আগামী পহেলা আগষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে কাপ্তাই থানা অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ মোহাম্মদ নূর ও কাপ্তাই ইউপি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আব্দুল লতিফকে সাথে নিয়ে নতুন বাজারস্থ সকল অবৈধ স্থাপনায় যেসকল সিড়ি নিমার্ণ করা হয়েছে সে সকল স্থানে উচ্ছেধ অভিযান পরিচালনা করবেন বলে জানানো হয়।

রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার নতুন বাজারস্থ সিএনজি চালক সমিতির জায়গার অবৈধ সিঁড়ি উচ্ছেধ অভিযানকে কেন্দ্র করে কাপ্তাইয়ের নতুন বাজার বণিক কল্যাণ সমবায় সমিতি ও কাপ্তাই অটো রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দদের শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টিকার সময় সাথে দ্বীমূখী সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। উক্ত ঘটনার সমাধানে রোববার সকালে  উপজেলা রেষ্ট হাউজে এক জরুরী আলোচনা সভায় এমন সিদ্ধান্ত জানানো হয়।

কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুল আলমের সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ছিলেন কাপ্তাই উপজেলা চেয়ারম্যান মো. দিলদার হোসেন, কাপ্তাই উপজেলা আ’লীগ সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অংসুইছাইন চৌধুরী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত বিকাশ তনচংগা, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নূর নাহার বেগম, কাপ্তাই থানা অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ মোহাম্মদ নূর, কাপ্তাই ইউপি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আব্দুল লতিফ, চন্দ্রঘোনা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরী (বেবী), রাইখালী ইউপি চেয়ারম্যান বাবু সায়ামং মারমা, চিৎমরম ইউপি চেয়ারম্যান খাইসা অং মারমা, ওয়াগ্ধসঢ়;গা ইউপি চেয়ারম্যান চিরঞ্জিত তঞ্চাঙ্গ্যাসহ উভয় সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

আলোচনায় অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, সিএনজি চালক সমিতির জায়গায় নির্মাণ কাজ করার জন্য নতুন বাজারের সড়কের মধ্যেই একটি সিঁড়ি বসানোর অনুমতি চাওয়া হয়।  ২৭ই মে হতে গত পহেলা জুলাই পর্যন্ত সিড়িটি ঘটনাস্থলে রাখার অনুমতি প্রদান করা হয়। তবে উক্ত সময় অতিবাহীত হওয়ার পরেও সিড়িটি উক্ত স্থান হতে না সরিয়ে নেওয়ায় বাজার অফিস কর্তৃপক্ষ তাদের লিখিত ভাবে উক্ত সিঁড়ি সরিয়ে নেওয়ার নোঁটিশ প্রদান করে।

কিন্তু তার পরেও উক্ত সিঁড়ি না সড়িয়ে নেওয়ায় নতুন বাজার ব্যবসায়ী সমিতি কর্তৃক উক্ত সিঁড়িকে ঘটনাস্থল হতে বাজার অফিসে নিয়ে আনা হয়। তার পরে সিএনজি চালকরা বাজার অফিসে এসে উক্ত সিঁড়িটি বাজার সভাপতির ও যুগ্ম সাধারন সম্পাদক উপস্থিতিতে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে একপর্যায়ে সিএনজি চালক সমিতির নেতৃবৃন্দের সাথে সংঘর্ষ বাঁধে।