‘গুর্খা সম্প্রদায়’ নামক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

730

zilla-pic
॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

পার্বত্যাঞ্চলের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জাতিসত্ত্বাগুলোকে সঠিকভাবে বিকাশের সুযোগ দেয়া হলে তাদের প্রতিভা বিকাশের আরো বেশী উদযোগী হবে বলে মন্তব্য করেছেন রাঙ্গামাটি আসনে সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার।

রবিবার বিকেলে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টী সাংস্কৃতিক ইন্সটিটিউটে রাঙ্গামাটির কবি, লেখক ও সঙ্গীত শিক্ষক মনোজ বাহাদুরের “পার্বত্য চট্টগ্রামের গুর্খা সম্প্রদায়” বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এ কথা বলেন।

ঊষাতন তালুকদার বলেন, ভাব আদান প্রদানের জন্য লেখনী, লেখা প্রকাশের মাধ্যমে মানুষ জানার সুযোগ পাই। কিন্তু পার্বত্যাঞ্চলের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীরা এই সৃজনশীলতা পূর্নাঙ্গ ভাবে বিকশিত করার সুযোগ পাচ্ছেনা। কালের বিবর্তনে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের সংষ্কৃতি আজ বিলপ্তের পথে। অপসংষ্কৃতির কারণে পাহাড়ের মানুষ আজ ঐতিহ্য হারিয়ে ফেলছে। ভাষা, কৃষ্টি, সংষ্কৃতিগুলো প্রায় কোন ঠাসা হয়ে পরেছে। মনোজ বাহদুরের এ বই প্রজন্মকে গুর্খা জাতিগোষ্ঠীর সংস্কৃতি সর্ম্পকে সঠিক ধারণা দিতে পারবে। তিনি অন্যান্য জাতিগোষ্ঠীদের ন্যায় গুর্খা সম্প্রদায়কেও নৃ-গোষ্ঠীদের অর্ন্তভুক্ত করার বিষয়ে সরকারকে অবগত করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন।

রাঙ্গামাটির কবি, লেখক ও সঙ্গীত শিক্ষক মনোজ বাহাদুরের সভাপতিত্বে ও রাঙ্গামাটি বেতারের সিনিয়র উপস্থাপক শিখা ত্রিপুরার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বেতার রাঙ্গামাটি আঞ্চলিক পরিচালক সালাহ উদ্দিন, স্থানীয় পত্রিকা দৈনিক গিরিদর্পণের সম্পাদক একেএম মকছুদ আহমেদ, রাঙ্গামাটি প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি প্রবীন সাংবাদিক সুনীল কান্তি দে, মুনীর চৌধুরী পদক প্রাপ্ত কবি ও লেখক মৃত্তিকা চাকমা, জুম ঈসথেটিকস কাউন্সিলের সভাপতি এ্যাডভোকেট মিহির বরণ চাকমা, রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টীর সাংস্কৃকিত ইন্সটিটিউটের পরিচালক রুনেল চাকমা, রাঙ্গামাটির বিশিষ্ট সাহিত্য গবেষক শিশির চাকমা ও রাঙ্গামাটির বিশিষ্ট লেখক ও কবি মুজিবুল হক বুলবুল প্রমূখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার আরো বলেন, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলায় উন্নয়নে যে বরাদ্দগুলো আসে সেগুলো সাহিত্য ও সাংস্কৃতিকর কাজে কতটুকু আসে। তিনি বলেন, সমাজে একে অপরের প্রতি মূল্যবোধ সেটা অনেকাংশে কমে যাচ্ছে। এগুলো জনমানুষের মধ্যে ভাব বিনিময় হওয়া প্রয়োজন। এই দেশে শৈলকুপায় দেড় কোটি টাকার একটি টেন্ডার পাওয়ায় এক মুক্তিযোদ্ধাকে দুর্বিত্তরা হামলা করেছে।

তিনি বলেন, ব্রাক্ষনবাড়িয়ার নাসিরনগর ও গোবিন্দগঞ্জে হামলা সত্যিই দুঃখজনক। রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে দুর্বিত্তরা ভুমি ভোগ করছে।

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে একজন সংসদ সদস্যকে কিভাবে অবমাননা করা হয়েছে সেটি সুষ্ঠু সংস্কৃতি চর্চা নয়। এসব সংস্কৃতি পরিবর্তন না করলে দেশ কখনোই এগিয়ে যাবেনা। এগুলো পরিহার করলে একে আপরের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ ফিরে আসবে দেশ এগিয়ে যাবে।