চন্দ্রঘোনা ইউপি নির্বাচনে ভোট যুদ্ধের আমেজ নেই

310
OLYMPUS DIGITAL CAMERA
॥ মঈন উদ্দীন বাপ্পী ॥

আগামী ১২ নভেম্বর রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার ১নং চন্দ্রঘোনা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। উপজেলার এ গুরুত্বপূর্ণ ইউনিয়নটি ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। ইউনিয়নটিতে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ৫২৯৫ এবং নারী ভোটার সংখ্যা ৪২৪৫।

আর এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চায়ের কাপে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। কেউ কেউ বলছে নির্বাচন হবার তারিখ জানলেও একজন প্রার্থীর পোষ্টার ছাড়া অন্য প্রার্থীর প্রচারণা-পোষ্টার দেখতে পারছি না। এ নির্বাচন নিয়ে তারা বিস্ময় প্রকাশ করেন।

কলা বিক্রেতা আবুল হোসেন জানান, ভোট দিবো ঠিক আছে। কিন্তু এ ধরণের নির্বাচন কোনদিন দেখি নাই।
কর্ণফূলী ডিগ্রী কলেজের ছাত্রী নীপা তঞ্চঙ্গ্যা জানান, নতুন ভোটার হয়েছি। যদি নির্বাচন স্থলে গোন্ডগোল না হয় তাহলে আমার প্রিয় প্রার্থীকে ভোট দিতে যাবো।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ ইউনিয়নে এবার চারজন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সমর্থিত প্রার্থী মুহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম (বেবি) ( নৌকা ), বিএনপির প্রার্থী জাকির হোসেন (ধানের শীষ), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মুহাম্মদ হারুনুর রশিদ (হাত পাখা) এবং একমাত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন ইব্রাহিম হাবিব মিলু (আনারস) প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছে

এদিকে সাধারণ নয়টি আসনে সদস্য পদে ৩০জন প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন।এছাড়া মহিলা সংরক্ষিত তিনটি আসনের একটিতে একক প্রার্থী থাকায় আগে বিজয়ী ঘোষণা করে উপজেলা নির্বাচন প্রশাসন। বাকী ২টি মহিলা সংরক্ষিত আসনে সাতজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন।

ধানের শিষ প্রতীক নিয়ে বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ জাকির হোসেন নির্বাচনের ব্যাপারে জানান, সরকার দলীয় সমর্থরা তাকে নির্বাচনের প্রচারণায় নামতে দেয়নি। তিনি অভিযোগ করে বলেন, সরকার দলের সমর্থকদের ভয়ে কোথাও কোন পোষ্টার লাগানো যাচ্ছে না। নির্বাচনে জিতার ব্যাপারে  ব্যাপারে তিনি আরও বলেন, যদি নির্বাচনে প্রহসনমূলক এবং বিশৃঙ্খল পরিবেশের সৃষ্ঠি না হয় তাহলে এ চন্দ্রঘোনার জনগণ আমাকে বিপুল ভোটে জয়লাভ করাবে।

নৌকা প্রতীক নিয়ে আ.লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরী (বেবী )বলেন, এবারের নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী। কারণ বর্তমান মুক্তিযুদ্ধের সরকার যেভাবে দেশ পরিচালনা করছে বাংলাদেশের ইতিহাসে অন্যকোন সরকার এ ভাবে সমৃদ্ধিশালী দেশে পরিচালিত করতে পারিনি। তিনি বলেন, আর এ সরকার দলের সমর্থিত প্রার্থী হিসেবে আমিও সে উন্নয়নের অংশিদার হতে চাই। তিনি বলেন, আশা রাখি এ চন্দ্রঘোনা ইউনিয়নের মানুষ আমাকে বিপুল ভোটে জয় লাভ করবে।

বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী নির্বাচনে প্রচারণা চালাতে পারছে না এমন প্রশ্নে তিনি জানান, বিএনপির এ প্রার্থীর একদিকে যেমন কর্মী-সমর্থক নাই অন্যদিকে জনসমর্থনও নাই। নিশ্চিত পরাজয়ের ভয়ে তিনি আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে।

হাত পাখা প্রতীক নিয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মুহাম্মদ হারুনুর রশিদ, ইনশাল্লাহ নির্বাচনে আমি জয় লাভ করবো।

কাপ্তাই উপজেলা নির্বাচনী কর্মকর্তা উৎফল বড়ুয়া জানান, নির্বাচনী সার্বিক কার্যক্রম ভাল রয়েছে। এখনো কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এছাড়াও নির্বাচন সুষ্ঠ ভাবে পরিচারনার জন্য সকল ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে এ নির্বাচনী কর্মকর্তা জানান।

উল্লেখ্য,উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের মধ্যে চারটির ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও ১নং চন্দ্রঘোনা ইউনিয়ন সীমানা জটিলতার কারণে এ ইউনিয়নে নির্বাচন স্থগিত করা হয়। পরে রিট করায় আদালত এটি খারিজ করলে নির্বাচন কমিশন চলতি বছরের ১২নভেম্বর পুন:রায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার ঘোষণা প্রদান করে।