চরম দূর্যোগে রাঙামাটির জনগণ: আরও ৩ জনের লাশটি উদ্ধার

246

স্টাফ রিপোর্ট- ১৫ জুন ২০১৭, দৈনিক রাঙামাটি:  ভারি বর্ষণে স্বরণকালের পাহাড় ধসে চরম দূর্যোগে পরেছে রাঙামাটির জনসাধারন। গত চার দিন বিদ্যূৎ বিচ্ছিন্ন থাকায় প্রতি কেজি কেরসিনের মূল্য নেয়া হচ্ছে তিন শত টাকা। সড়ক যোগাযোগ বন্ধ থাকায় নিত্য প্রয়োজনিয় জিনিসপত্র পৌছানো যাচ্ছে না। বিভিন্ন পন্থায় সংগ্রহ করা নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম রয়েছে হাতের নাগালের বাইরে। তার মধে চালের দাম কেজি প্রতি বেড়েছে ২০ থেকে ২৫ টাকা। এব্যাপারে সরকারের তরফ থেকে নেয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ ওঠেছে।

এদিকে আজ রাঙামাটি শহরের ভেদভেদির বিএডিসি এলাকা, সার্কিট হাউসের পেছন থেকে এবং মানিকছড়ি এলাকা থেকে আরও ৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রাঙামাটিতে ভয়াবহ পাহাড় ধসের ঘটনায় এ নিয়ে নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০৮ জন। আজ বৃহস্পতিবার সকালে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।

রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক দিদারুল আলম জানান, বৃহস্পতিবার সকালে জেলার ৩ টি জায়গায় মাটি সরিয়ে এক সেনাসদস্য ও এক নারীসহ ৩ জনের লাশ পাওয়া গেছে।

নিহতরা হলেন- মানিকছড়ি সেনাক্যাম্পের সদস্য আজিজ, ভেদভেদি পোস্ট অফিস কলোনি এলাকার রুপন দত্ত ও পশ্চিম মসজিদপাড়ার সুলতানা।
সাগরে নিম্নচাপের প্রভাবে সোমবার রাতে অতিবৃষ্টি শুরুর পর চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন জেলায় পাহাড় ধসে বহু হতাহতের ঘটনা ঘটে।
সোমবার রাত থেকে বুধবার রাত পর্যন্ত ১৫০ জনের লাশ উদ্ধারের খবর দেয়া হয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে।

তাদের মধ্যে ছিল রাঙামাটিতে ১০৫ জন, চট্টগ্রামে ২৯, বান্দরবানে ৬, কক্সবাজারে ২ ও খাগড়াছড়িতে ১ জন। এ ছাড়া দেয়ালচাপা, গাছচাপা ও পানিতে ভেসে আরও ৭ জনের মৃত্যু হয়।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরো প্রধান । তথ্য সুত্র- অন্যমিডিয়া