ডিসির পর মোবাইল নাম্বার ক্লোনিংয়ের শিকার হলেন রাঙামাটির ইওএনও

70

|| স্টাফ রিপোর্টার ||

প্রযুক্তি প্রতারকদের মাধ্যমে এবার মোবাইল নাম্বার ক্লোনিংয়ের শিকার হয়েছেব রাঙামাটি সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফাতেমা তুজ জোহরা উপমা। বৃহস্পতিবার ইওএনও’র ব্যবহৃত সরকারি মোবাইল ফোনের টেলিটক নাম্বার ক্লোন করে এক উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে চাঁদা দাবি করেছে একটি চক্র। পরবর্তীতে চেয়ারম্যান ব্যক্তিগতভাবে ইওএনও কে বিষয়টি অবহিত করলে ফোন নাম্বার ক্লোনিংয়ের বিষয়টি উঠে আসে।

এবিষয়ে যোগাযোগ করা হলে ইউএনও প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানদের কাছে আমার ব্যবহৃত সরকারি মুঠোফোন নাম্বার (০১৫৫৭-৬৭৬২২০) থেকে ফোন করে টাকা চাওয়া হয়। সদর উপজেলার চেয়ারম্যান বিষয়টি আমাকে অবহিত করলে আমি বিস্মিত হই এবং সাথে সাথেই এটি প্রতারকদের কাজ বলে সকলকে অবহিত করা হয়।

তিনি আরো জানান, ইতিমধ্যেই রাঙামাটির পুলিশ সুপারকে বিষয়টি অবহিত করে একটি লিখিত অভিযোগও দেওয়া হয়েছে এবং প্রতারক টাকা পাঠানোর জন্য যে বিকাশ নাম্বারটি দিয়েছিলো তা ছিল বগুরার। এছাড়াও প্রতারকদের চিহ্নিত করতে প্রযুক্তিগত সকল ধরনের কার্যক্রম চলমান আছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। এদিকে কিছুদিন আগেও রাঙামাটির ডিসি মিজানুর রহমানের নাম্বার ক্লোন করে টাকা চাওয়া হয়। এর আগে ২০১৮ সালের ২১ জুন রাঙামাটির তৎকালীন জেলা প্রশাসক মানুনুর রশিদ এর দায়িত্বকালীন সময়েও একই কায়দায় প্রতারকচক্র সরকারী নাম্বার ক্লোনিং করে বিভিন্ন জনের নিকট চাঁদা দাবি করেছিলো। সেসময় জেলা প্রশাসক তার ডিসি রাঙামাটি ফেসবুক আইডিতে স্ট্যাটাসের মাধ্যমে এই ধরনের কার্যক্রমের সাথে কোনোভাবেই সম্পৃক্ত না হওয়ার পাশাপাশি প্রতারকদের বিরুদ্ধে কোনো তথ্য পেলে সাথে সাথে জেলা প্রশাসনকে অবহিত করার আহবান জানিয়েছিলেন।

আজ বৃহস্পতিবারেও একইভাবে সীম ক্লোনিং করে প্রতারক চক্রটি চাঁদা দাবি করছে। বিষয়টি অবহিত হওয়ার পরপরই uno rangamati sader ফেসবুক আইডি থেকে এই ধরনের ফাঁদে পা না দিতে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে রাঙামাটি সদর উপজেলা প্রশাসন কর্তৃপক্ষ। উক্ত আইডির টাইমলাইনে উল্লেখ করা হয়, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, রাঙামাটি সদর এর মোবাইল নম্বর (০১৫৫৭-৬৭৬২২০) ক্লোন করে অর্থ চাওয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সতর্ক থাকার জন্য অনুরোধ করা হলো। প্রযুক্তির উৎকর্ষতার এযুগে দুষ্কৃতকারীদের হাতে প্রায়শই কল স্ফুফিং- এর শিকার হয়ে সাধারণ মানুষ প্রতারিত হয়। রাঙামাটির সকল সাধারণ জনগণ, জনপ্রতিনিধি ও কর্মকর্তাদের এ বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।