তিন পার্বত্য জেলার দুর্গম এলাকাগুলো সহসাই বিদ্যুতের আওতায় আসবে ঃ বীর বাহাদুর

378

 

॥ বান্দরবান প্রতিনিধি ॥

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেছেন, তিন পার্বত্য জেলার প্রত্যন্ত ও দুর্গম এলাকাগুলোও সহসাই বিদ্যুতের আওতায় আসবে। তিনি বলেন পাহাড়ের মানুষের কথা মাথায় রেখে প্রদানমন্ত্রী একনেকের বৈঠকে পার্বত্য তিন পার্বত্য জেলায় বিদ্যুতায়নের জন্য ৫৬৫কোটি টাকা বরাদ্দ প্রদান করেছেন। এ ছাড়া তিনটি স্থলবন্দরও নির্মাণ করা হবে,  ঘুমধুমে স্থল বন্দর করার পরিকল্পনা এরই অংশ, চাকঢালাও বিবেচনায় রয়েছে। শীঘ্রই বিশেষজ্ঞরা সরেজমিনে এসব এলাকা পরির্দশন করবেন। শীঘ্রই চাকঢালায় বর্ডার হাট হবে। বাইশারী চাকপাড়ায় রাজঘাট ব্রিজ, কালুরঘাট রাস্তা হবে। এই কাজ বাস্তবায়িত হলে দুই দেশের মাঝে বাণিজ্য বাড়বে। তখন পর্যটন নিয়ে কাজ করতে হবে এতে নাইক্ষ্যংছড়ির চেহারা পাল্টে যাবে।

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি হাজী এম এ কালাম ডিগ্রী কলেজের ২০ বছর পূর্তি ও পূর্ণমিলনীতে প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদানকালে এই বক্তব্য দেন তিনি। শনিবার  ২০ বছর পূর্তি ঘিরে কলেজ ক্যাম্পাসে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কক্সবাজার-রামু ৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল বলেন- একদিকে আছে শিক্ষা, অন্যদিকে সুশিক্ষা। একদিকে সৃষ্টি অন্যদিকে ধ্বংস, স্বাধীনতার মূলমন্ত্র আরেক দিকে আছে স্বাধীনতা বিরোধীদের আষ্ফালন, একদিকে আছে উন্নয়ন অন্যদিকে আছে এদেশে লুটপাটের ইতিহাস, একদিকে আছে বীর বাহাদুর আরেকদিকে আছে এ দেশের ক্ষমতালোভী কিছু উচ্চাঙ্খী মানুষেরা। নিজের দিকে নিজেকে থাকতে হবে। বীর বাহাদুরের দিকে থাকতে হবে। তাহলেই নাইক্ষ্যংছড়ির উন্নয়ন হবে, দেশের উন্নয়ন হবে।

বান্দরবান জেলা প্রশাসক দীলিপ কুমার বণিক বলেন- বাংলাদেশের আনাচে কানাচে অনেক কলেজ আছে। দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন সংগ্রাম করছে সরকারী করণের জন্য। কিন্তু বান্দরবান জেলায় এক সাথে তিনটি কলেজ সরকারী করণ হয়েছে। এ সমস্থ কৃতিত্বের দাবীদার বীর বাহাদুর। বিনোদনের জন্য শিশু পার্ক ও ডাক বাংলো উদ্বোধন করেছেন তিনি আজ। বাংলাদেশে ৪৯১টি উপজেলার মধ্যে ৮টি উপজেলায় পাচঁশত আসন বিশিষ্ট অডিটরিয়াম হবে। এরমধ্যে বান্দরবানের থানচিতে একটি। এটিও বীর বাহাদুরের কল্যানে হচ্ছে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে আমন্ত্রিত অতিথিদের ক্রেষ্ট দিয়ে বরণ করে নেন কলেজের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ। পরে অনুষ্ঠানে বর্ষপূর্তি উপলক্ষ্যে ম্যাগাজিন উদ্ভাস এর মোড়ক উম্মোচন করেন অতিথিরা।

এর আগে পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী নাইক্ষ্যংছড়ি পৌছে প্রথমে রেষ্ট হাউজ দ্বিতল ও শিশু পার্কের উদ্বোধন করেন। পরে উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি বদুর উল্লাহর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ শীর্ষক রচনা প্রতিযোগিতার পুরষ্কার প্রদান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস,এম সরওয়ার কামালের সভাপতিত্বে বিভিন্ন সংস্থা ও ব্যাক্তি পর্যায়ে ঢেউটিন এবং শীতাত্রদের মাঝে কম্বল বিতরণ কর্মসূচী উদ্বোধন করেন। পরে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের অর্থায়নে কলেজ হোষ্টেলের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন শেষে হাজী এম এ কালাম ডিগ্রী কলেজের ২০ বছর পূর্তি উৎসবে যোগদান করেন অতিথিবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান জেলা পরিষদ সদস্য লক্ষী পদ দাশ, কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা, আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য শফিকুর রহমান, পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য কাজল কান্তি দাশ, কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের যুগ্ম সম্পাদক রেজাউল করিম, নাইক্ষ্যংছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ তৌহিদ কবির, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবীদ হাসান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো: ইকবাল, উপজেলা আওয়ামীলীগ আহ্বায়ক ক্যউচিং চাক, যুগ্ম আহ্বায়ক আবু তাহের কোম্পানী, অধ্যাপক মো: শফি উল্লাহ, তসলিম ইকবাল চৌধুরী, সদস্য সচিব মো: ইমরান মেম্বার, কলেজের উপাধক্ষ্য বশিরুল আলম, অধ্যাপক শাহ আলম, মোজাহিদুল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক জনি সুশীল। অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন বাংলাদেশ আইডল মং।