তড়িৎ অভিযানে একঘন্টায় দু’লক্ষ তাল বীজ রোপিত রাঙামাটিতে

220

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

উঁচু সবুজের প্রত্যাশার সাথে দুর্যোগে বন্ধুত্বের আশায় এক ঘন্টার এক ঝটিকা অভিযানে দু’লক্ষ তাল বীজ রোপিত হলো পাহাড়ি জেলা রাঙামাটিতে। সোমবার পুরো জেলায় একযোগে এই তালের বিজ রোপন করা হয়। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজিত তালবীজ রোপণ অভিযানে রাঙামাটি আদালত প্রাঙ্গনে পাঁচটি বীজ রোপণ করেন জেলা ও দায়রা জজ মোঃ কাউসার এবং ডিসি মানজারুল মান্নান।

রাঙামাটি পৌরসভার কাউন্সিলর জোবাইতুন্নাহার একদল তরুণ তরুণীসহ এ সময় তাদের সহযোগীতা করেন। পরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনেও তালবীজ রোপণ করা হয়। এর আগে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল  মান্নান, মানিকছড়ি, সাপছড়ি, ভেদভেদী থেকে শুরু করে চম্পাতলী সেনা ব্যারাক পর্যন্ত গিয়ে নিজ হাতে বিভিন্ন জায়গায় তালবীজ বপণ করেন।

রাঙামাটি সরকারি কলেজ প্রাঙ্গনে এ কর্মসূচির উদ্বোধনকালে জেলা প্রশাসক ছাড়াও এসময় পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান, রাঙামাটি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর জাফর আহমেদসহ কলেজের শিক্ষক-শিক্ষিকাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা এবং বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি দপ্তর এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহনে এই তাল বীজ রোপণ কর্মসূচী সম্পন্ন করা হয়। জেলা প্রশাসন থেকে জানানো হয়েছে, জেলার সকল উপজেলায় একই সময়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের উপস্থিতিতে সমাজের সর্বস্তরের লোকজন স্বতঃস্ফুর্তভাবে এই তাল বীজ রোপন কর্মসূচীতে অংশ নেন।

তালবীজ রোপণকালে জেলাপ্রশাসক বলেন, মূলত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে সবুজ পাহাড়ে দু’ লক্ষ তালবীজ রোপণের কর্মসূচি হাতে নিয়েছে রাঙামাটি জেলা প্রশাসন। তিনি জানান, বাংলাদেশের মোট আয়তনের তুলনায় সবুজের আচ্ছাদনের দিক থেকে আমাদের দেশ এখনও পিছিয়ে রয়েছে। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় প্রতিটি দেশকে মোটভূমির অন্তত ২৫ শতাংশ জায়গা সবুজের আচ্ছাদনে নিয়ে আসার বৈশ্বিক সিদ্ধান্ত রয়েছে।

এই প্রেক্ষাপটে দেশের বৃক্ষরোপণের জন্য বিশেষ কর্মসূচি হাতে নিয়ে কাজ করছে বর্তমান সরকার। এই কর্মসূচির সাথেই অতিরিক্ত হিসেবে এ বছর দেশজুড়ে তালগাছ রোপণের বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। জেলা প্রশাসক জানান, তালগাছ অনেক লম্বা হওয়ার কারণে এই গাছ দেশকে বজ্রপাতসহ অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগ হতেও রক্ষা করতে সাহায্য করবে বলে বিশেষজ্ঞরা মত প্রকাশ করেছেন।

এছাড়াও তালগাছ মানুষের নানা উপকারে আসে, তাল ফল হিসেবে যেমন সুস্বাদু তেমনি আবহমান বাংলায় তালের ব্যবহারও নানামুখি। তাল ছাড়াও তালের পাতা শাস এবং গাছ নানাভাবে কাজে লাগানো যায়। এক সময় মানুষ রাস্তার দুইপাশে তালগাছ রোপণ করতো। এতে প্রাকৃতিকভাবে বজ্রপাতের ঝুকি হ্রাস ঘটতো। দেশের জলবায়ু পরিবর্তনে ও বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে সময় এসেছে তাল গাছ রোপণে মনোযোগ