নানিয়ারচরের আম নিয়ে রপ্তানি প্রত্যাশা ব্যবসায়ী মানিকের

75

॥ মাহাদী বিন সুলতান ॥

আনারসের রাজধানী খ্যাত নানিয়ারচর উপজেলায় মৌসুমি ফল আনারস চাষের পাশাপাশি অন্যান্য ফলের চাষও বেড়েছে বহুমাত্রায়। গাছে গাছে গুটি বেধেছে আম। কালবৈশাখীর ভয়ংকর থাবা থেকে বাঁচলে দেশের গন্ডি পেরিয়ে এবারও বিদেশে আম রপ্তানি করার সম্ভাবনা দেখছে স্থানীয় আম ব্যবসায়ী মানিক খান।

রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলার বুড়িঘাট ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড বগাছড়ি গ্রামে সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, এলাকার চাষিরা আনারসের পাশাপাশি আম, কমলা, মাল্টা, লিচু, ড্রাগনসহ নানার সুস্বাদু ফল চাষে ঝুকছে। গেল বছর স্থানীয় আম ব্যবসায়ী মানিক খান ইতালি ও যুক্তরাজ্যে রপ্তানি করছেন তার বাগানের আম। তবে গেল বছর করোনার প্রকোপে লোকসান গুনতে হয়েছে। লোকসান পুষিয়ে উঠতে তিনি বাগানে করছেন বাড়তি পরিচর্যা।

মানিকের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত বছর দেশের বাইরে থেকে ২টি অর্ডার পেলেও করোনার প্রভাবে লোকসান গুনতে হয়েছে। বাগান লিজ নেওয়া, কীটনাশক স্প্রে, মোড়কজাতকরণ, পাহাড়ের উপরে ইলেক্ট্রিক মটর দিয়ে পানি দেওয়াসহ বাগান পরিচর্যায় মোটা অংকের টাকা খরচ করতে হয়েছে। এবারও দেশের বাইরে আম পাঠানোর ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। সব কিছু ঠিক থাকলে এই মৌসুমেই ইতালি ও যুক্তরাজ্যে আম রপ্তানিতে করবেন তিনি।

বাগান মালিক আরো জানান, হিম সাগর, হাড়ি ভাঙ্গা, ল্যাংড়া, গোবিন্দ ভোগ, রুপালী, মল্লিকা, আশ্বিনাসহ ১০জাতের আম রয়েছে তার বাগানে। কৃষিবিদ নুর ইসলাম থেকে প্রায় ১২একর জমির আম বাগান লিজ নিয়ে ব্যবসা করছেন তিনি। বিশাল এই বাগানে রয়েছে ৪হাজার আম গাছ।

এই ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ ইমতিয়াজ আলম প্রতিবেদককে জানান, নানিয়ারচর উপজেলায় আমের ব্যাপক চাষ হলেও ইদানীং বাড়ছে বিভিন্ন জাতের আমের চাষ। উপজেলায় ৭২০ হেক্টর জমি জুড়ে এবার আমের চাষ হয়েছে। পাহাড়ি জমিতে আনারস থেকে আম চাষ বৃদ্ধি পেলে পাহাড়ধ্বস অনেকটা রোধ হবে।

কৃষি কর্মকর্তা আরো জানায়, বগাছড়ি, ইসলামপুর, সাবেক্ষ্যং ও নানিয়ারচর সদরের টিএন্ডটি বাজার এলাকায় বেড়েছে আমের চাষ। পাহাড়ে দেশি জাতের রেংগুন জাতের আমের চাষ বেশি হলেও ইদানীং ল্যাংড়া, হিমসাগর, হাড়ি ভাঙ্গার মত উন্নত জাতের আমেরও চাষ বাড়ছে। ফলে উপজেলায় আম চাষেরও ভাল সম্ভবনা দেখছেন এই কৃষি কর্মকর্তা।