নানিয়ারচরে ইউপি নির্বাচন ঘিরে অপহরণ পাল্টা অপহরণ

223

apohoron dr

স্টাফ রিপোর্টার, ১৯ মার্চ ২০১৬, দৈনিক রাঙামাটি : নানিয়ারচরে তিনদিনের ব্যবধানে দুই ঘটনায় চারজন অপহরনের খবর পাওয়া গেছে। বুধবার সকালে উপজেলার সদর ইউনিয়স্থ সাতমারা এলাকা থেকে স্থানীয় মেম্বার প্রভাত চাকমা, সুজন কার্বারী ও প্রিয়লাল চাকমা নামের তিনজনকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে দূর্বত্তরা। ওই তিনজনের বাড়ি সাতমারা এলাকায়। তাদের মধ্যে একজন একটি আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলের যুব সংগঠনের নেতা বলে জানা গেছে। এর তিনদিন আগে রোববার রাতে একই এলাকা থেকে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যার পঞ্চানন চাকমাকে অপহরণ করা হয় বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা। বুড়িঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রমোদ খীসা অপহরণের সত্যতা নিশ্চিত করলেও কারা এই ঘটনার সাথে জড়িত সেই বিষয়ে চেয়ারম্যান কিছুই জানাতে পারেন নি।

জেএসএস লারমা গ্রুপের নানিয়ারচর উপজেলার এক নেতা জানিয়েছেন, কয়েকদিন আগে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান পঞ্চানন চাকমা সাতমারা এলাকার স্থানীয় মেম্বার প্রভাত চাকমার বাড়িতে নিমন্ত্রণ খেতে গেলে সেখান থেকে মুঠোফোনে তাকে ডেকে নিয়ে যান প্রিয়লাল চাকমা। পরে প্রিয়লালের ফোনে পঞ্চাননের স্ত্রী কল করলে প্রিয়লাল তাকে জানায় পঞ্চানন তার সাথে রয়েছে এবং নিমন্ত্রণ খেয়ে বোটে করে পৌছে দেওয়া হবে পঞ্চাননকে। এরপর পঞ্চানন আর বাসায় ফেরেনি। এই ঘটনার তিনদিন অতিবাহিত হওয়ার পর বুধবার সকালে সাতমারা এলাকা থেকে সুজন কার্বারী, মেম্বার প্রভাত চাকমা ও আঞ্চলিক দলের যুবনেতা প্রিয়লাল চাকমাকে অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে যায় দূর্বৃত্তদের অপর একটি গ্রুপ।

স্থানীয়দের ধারনা, আসন্ন নির্বাচনে এমএন লারমা’র হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীতা করার ঘোষণার পর থেকেই পঞ্চাননকে অব্যাহতভাবে হুমকি দিয়ে আসছিলো আঞ্চলিক দলের স্থানীয় একটি গ্রুপ। তারপরও পঞ্চানন তার অবস্থান থেকে সরে না আসায় তাকে অপহরণ করা হয়েছে। এই ঘটনাটি ঘরোয়াভাবে সমাধানের চেষ্টা চালানোর পরও পঞ্চাননকে মুক্তি না দেওয়ায় তার সমর্থকরা পঞ্চাননকে অপহরণের প্রতিশোধ হিসেবেই বুধবার সকালে পাল্টা অপহরনের ঘটনাটি ঘটায়।

নানিয়ারচর সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিনয় কৃঞ্চ চাকমা ঘটনা দু’টির সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন আমি দুইটি ঘটনা-ই জেনেছি। এই ব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে করনীয় নির্ধারনে বৃহস্পতিবার উভয় পক্ষের সাথে বৈঠক করি। উভয় ঘটনায় কোনো পক্ষই থানা ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে কোনো ধরনের অভিযোগ করেনি বলে নিরাপত্তা বাহিনীর দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে।

পোস্ট করেনন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান