নানিয়ারচরে সন্ত্রাসী কায়দায় নির্মাণাধীন বসতঘর কুপিয়েছে দুষ্কৃতকারীরা

329

॥ নানিয়ারচর প্রতিনিধি ॥

রাঙামাটির নানিয়ারচরে পাহাড়ি দুষ্কৃতিকারী কর্তৃক সন্ত্রাসী কায়দায় অধিবাসী বাঙ্গালির নির্মাণাধীন বসতঘর কুপিয়ে ভেঙ্গে তছনছ করে দেওয়ার অভিযোগ এসেছে। শুক্রবার রাত আনুমানিক সাড়ে ৮টায় উপজেলার বুড়িঘাট ইউনিয়নের শেষ সীমানা বগাছড়ি ও নানিয়ারচর ইউনিয়নের ১৭মাইল নামক এলাকার মাঝামাঝি স্থানে মো. রবিউল ইসলামের নির্মাণাধীন আধাপাকা ঘরটি দুষ্কৃতকারীরা সন্ত্রাসী কায়দায় ভেঙ্গে পালিয়ে যায়।

ভুক্তভোগী রবিউল জানায়, সম্প্রতি আমার রেকর্ডীয় জায়গায় বসতঘর নির্মাণ শুরু করলে গত রোববার রাতে কে বা কাহারা ঘরের পিলারগুলো হেলিয়ে দিয়ে যায়। পরদিন সকালে এটি দেখে আমি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কে বিষয়টি অবহিত করি। ঐ দিন ২নং নানিয়ারচর সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেন। পরে ১৭মাইল এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গের সাথে আলোচনা করে আমাকে ঘর নির্মাণে অনুমতি দেন। কিন্তু তারপরও পাহাড়ি দুষ্কৃতিকারীরা গত রাতে সন্ত্রাসী কায়দায় এবং অমানবিক ভাবে আমার বসতঘরটি ভেঙ্গে দিয়ে যায়। এতে আমি ও আমার পরিবার পথে বসার উপক্রম। আমি প্রশাসনের নিকট সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি।

এবিষয়ে নানিয়ারচর উপজেলার ২নং সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বাপ্পি চাকমা জানান, ঘরটির নির্মাণকাজ শুরু করলে কে বা কাহারা ঘরের পাকা খুটিগুলো হেলিয়ে দেওয়ার বিষয়ে জানতে পেরে গত সোমবার এবিষয়ে আমি এলাকাবাসীর সাথে কথা বলি এবং জায়গার মালিকের যেহেতু কাগজপত্র ঠিক আছে তাকে ঘর নির্মাণ করতে বলি। পাশাপাশি অন্য কারো জায়গাটির মালিকানা থাকলে তাকে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ বা আমার সাথে যোগাযোগের কথা বলি। জায়গাটির দাবি নিয়ে কেউ আমার কাছে আসেনি। গত রাতে নির্মাণাধীন পুরো ঘরটি দুষ্কৃতিকারীরা ভেঙ্গে দিয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রশাসন এখন আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

জানতে চাইলে এই বিষয়ে নানিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ সুজন হালদার বলেন, ঘটনার খবর জানতে পেরে আমি ঘটনাস্থলে গিয়েছি। ঘটনাটি নিয়ে তদন্ত চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা জানায়, গত রাতে শতাধিক লোকজন একত্রিত হয়ে এই সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়েছে। দূর পাহাড় থেকে আমরা টিন কোপানো এবং হ্যামার দিয়ে ঘরের পাকা পিলারগুলো ভেঙ্গে ফেলার আওয়াজ শুনতে পেয়েছি। গত বছর এই জায়গাটির পাশেই অন্য এক বাঙ্গালির নবনির্মিত বসতঘরে পাহাড়িরা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় বলেও জানান তিনি।