নারী দিবসের আলোচনায় উষাতন তালুকদার : পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নে দীর্ঘসূত্রিতার কারণেই পাহাড়ে প্রতিনিয়ত নারীরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছে

286

p.1

মঈন উদ্দীন বাপ্পী, ৮ মার্চ ২০১৬, দৈনিক রাঙামাটি : জাতীয় সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার বলেন, পাহাড়ে প্রতিনিয়ত নারীরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নে দীর্ঘসূত্রিতার কারণেই নারীরা নির্যাতিত হচ্ছে বলে মনে করেন তিনি। পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন হলে নির্যাতন ও ধর্ষণ বন্ধ হয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। তিনি বলেন, সরকার চুক্তি বাস্তবায়ন করবে বলে আশ্বাস প্রদান করে আসছে; কিন্তু দীর্ঘ ১৮ বছরেও এ চুক্তি বাস্তবায়ন করা হয়নি। আমাদের সকলে পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে। বিশেষ করে পাহাড়ি নারীদের এ আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করে চুক্তি বাস্তবায়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।
“সমাজে নারীর সমধিকার, সমমর্যাদা, প্রতিষ্ঠার আন্দোলন জোরদার করি, পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অসহযোগ আন্দোলনে নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করি” এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা সমিতি ও হিল উইমেন্স ফেডারেশনের যৌথ আয়োজনে মঙ্গলবার সকালে জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন।

রাঙামাটি মহিলা সমিতির সভাপতি সোনারাণী চাকমার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা যুব সমিতির সভাপতি টোয়েন চাকমা, হেডম্যান ও কার্বারী নেটওয়ার্ক’র নেত্রী সমাপ্তি দেওয়ান, মানবাধিকার কর্মী মুক্তাশ্রী চাকমা প্রমুখ।

উষাতন আরো বলেন, নারীদের অধিকার আদায়ে পুরুষদেরও সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে। আমাদের সমাজ ব্যবস্থা পুরুষ শাসিত। যার কারণে আমরা অনেক সময় ভুলে যায় নারীর অধিকারের কথা। কিন্তু আমাদের মনে রাখতে হবে, কাজী নজরুলের সেই কবিতার উক্তি, ‘এ পৃথিবীর যা কিছু কল্যাণকর, অর্ধেক তার করিয়াছে নারী অর্ধেক তার নর’। অথাৎ নারীদের বাদ দিয়ে কোনদিন কোন সমাজেন উন্নয়ন করা সম্ভব নয়। তিনি আক্ষেপের সাথে বলেন, আমাদের পাহাড়ি নারীদের প্রতি বর্তমানে যে নির্যাতন সহিংসতা চলছে তা আর চলতে দেওয়া যায় না। এবার সময় হয়েছে যথাযথ প্রতিবাদ করার। পাহাড়ি নারীদের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি আপনার আপনাদের অধিকার আদায়ে আন্দোলন সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পরুন। যতদিন অধিকার আদায় হবে না ততদিন আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যাবেন।

পোস্ট করেনন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান