নিজ পাহারাদারের হাতে খুন হলেন জেএসএসের সামরিক কমান্ডার

90

বাঘাইছড়ি প্রতিনিধি 

নিজ পাহারাদারের হাতেই খুন হলেন সংস্কারপন্থী জেএসএস এর সামরিক কমান্ডার বিশ্ব চাকমা ওরফে যুদ্ধ চাকমা। বাঘাইছড়ির বাবুপাড়া এলাকায় সশস্ত্র অবস্থায় বিশ্রামে থাকাকালে মঙ্গলবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে তাকে খুন করে তারই নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সহযোগী সৈনিক। যুদ্ধ চাকমার অনুসারীদের ধারণা খুনী সৈনিক সুজন চাকমা ছিল বন্ধুবেশি গুপ্তচর। তারা উভয়ে অনডিউটিতে ছিলেন। এক জায়গায় কিছুক্ষণের জন্য বিশ্রাম নিচ্ছিলেন তারা। সুযোগ বুঝে সুজন চাকমা যুদ্ধ চাকমাকে খুব কাছ থেকে অব্যর্থ নিশানায় গুলি করলে সাথে সাথেই তার মৃত্যু হয়। পরে যুদ্ধ চাকমার একে-ফোরটি সেভেন ও একটি অত্যাধুনিক এম ফোর রাইফেল লুটে নিয়ে সটকে পড়ে সুজন চাকমা।

জেএসএস এমএন লারমা গ্রুপের উপজেলার দায়িত্বে থাকা প্রথম সারির একজন নেতা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। খবর পেয়ে সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা।

সংস্কারপন্থী জেএসএস এর দলীয় দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, নিহত যুদ্ধ চাকমা বিগত চার বছর আগে সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন জেএসএস থেকে অস্ত্র নিয়ে পালিয়ে এসে সংস্কারপন্থী জেএসএস এমএন লারমা গ্রুপে যোগ দেয়। সময়ের ব্যবধানে তাকে বাবু পাড়া এলাকার সামরিক কমান্ডারের দায়িত্ব দেয় সংস্কারপন্থীরা। প্রতিদিন রাতে তার নেতৃত্বেই বাবুপাড়া এলাকায় সামরিক টহল দিতো তারা। এই ধারাবাহিকতায় বুধবার রাতে সশস্ত্র অবস্থায় ডিউটিতে থাকাকালীন সময়ে তার সাথে থাকা ছদ্মবেশি সহকর্মী সুজন চাকমা গভীর রাত আড়াইটার সময় গুলি করে যুদ্ধ চাকমাকে হত্যা করে।

দলীয় সূত্র জানিয়েছে, একে-৪৭ ও একটি এম ফোর অস্ত্র নিয়ে সুজন চাকমা জেএসএস মূল দলে যোগদানের উদ্দেশ্যে যুদ্ধকে হত্যা করে পালিয়ে গেছে।

বাঘাইছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফ উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বাবু পাড়া এলাকায় গভীর রাতে নিজ দলের কর্মীর গুলিতে যুদ্ধ চাকমা নামে একজন নিহত হয়েছে। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছি আমরা। ময়না তদন্তের জন্য খাগড়াছড়ি জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।