নির্বাচনী হলাফনামায় ভূয়া নাম পরিচয় প্রদানের অভিযোগ

581

barkol-upojila-chairmen-moni-chakma

॥ আলমগীর মানিক ॥ নির্বাচনী হলফনামায় মিথ্যা তথ্য দিয়ে নির্বাচিত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয়, তিনি নিজের এবং নিজের বাবার নাম গোপন রেখে অন্য নামে কাগজপত্র জমা দিয়েছেন বলে অভিযোগ তোলা হয়েছে।

রাঙামাটি শহরে অনুষ্ঠিত জনাকীর্ণ এক সাংবাদিক সম্মেলনে বরকল উপজেলা চেয়ারম্যান মনি চাকমার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উত্থাপন করেন ঐ এলাকার কয়েকজন সচেতন নাগরিক।

রাঙামাটি শহরের রেস্টুরেন্টে আয়োজিত এই সংবাদ সম্মেলনে আরো অভিযোগ করা হয়, রাঙামাটির জেলার বরকল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনি চাকমা বিগত উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সময় হলফনামায় যেসব তথ্য দিয়েছেন তার সাথে বাস্তবতার কোনো সাদৃশ্য নেই।

মনি চাকমা ও তার পরিবারের সদস্যদের শিক্ষা সনদ ও ভোটার তালিকার ফটোকপি সাংবাদিকদের সরবরাহ করে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগকারিরা জানান, চেয়ারম্যান মনি চাকমার প্রকৃত নাম সুপ্রিয়া চাকমা এবং তিনি এই নামেই তার স্কুল জীবন কাটিয়েছেন সে অনুযায়ী তার সরবরাহকৃত সনদপত্র সন্দেহজনক এবং ভূয়া।

তার পরিবারের সদস্যদের পরিচয় তুলে ধরে জানানো হয়, সুপ্রিয়া চাকমার (মণি চাকমা) পিতা লাল মনি চাকমা এবং মাতা কৃপাদেবী চাকমা। এই পরিচয়েই তিনি রাঙামাটি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণীতে ভর্তি হয়েছিলেন।

১৯৯২ সালে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড কুমিল্লা’র অধিনে এসএসসি পরিক্ষায় অংশগ্রহণ করেন এবং গণিত বিষয়ে অকৃতকার্য হন। রোল নাম্বার ছিল ম-১৭২৪ এবং রেজিস্ট্রেশন নাম্বার ছিলো-৫২৭২২/১৯৯০। তার জন্ম তারিখ ১১/১০/১৯৭৫ইং।

যাদের মণি চাকমা ভাইবোন হিসেবে পরিচয় দেন তাদের সকলের পিতার নাম লাল মনি চাকমা এবং তিনি জীবিত। অথচ মণি চাকমা হলফনামায় পিতা মৃত দেখিয়েছেন।

press-brife-pic

‘ ৪র্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন-২০১৪ এর রিটার্নিং অফিসার ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এর নিকট ১৩/০২/২০১৪ তারিখে হলফনামা মূলে দাখিলকৃত এসএসসি সনদপত্রে দেখা যায়, তার নাম মনি চাকমা, পিতা মৃত আশুতোষ চাকমা, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড কুমিল্লা এর অধীনে কাউখালি বেতবুনিয়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৯৩ সালে এসএসসি পরিক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন।

সেখানে তার জন্ম তারিখ দেখানো হয়েছে ১০/১১/১৯৭৮। তার এই পরিচয় সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। কারণ মণি চাকমার পিতা হিসাবে দেখানো আষাতোষ চাকমা নামে কোন ব্যক্তির অস্থিত্ব পুরো বরকল উপজেলাজুড়ে কখনো ছিলনা এবং বর্তমানেও নেই বলে অভিযোগকারিরা উল্লেখ করেন।

তারা জানান, মনি চাকমার ছোট বোন শান্তি প্রিয়া চাকমা’র শিক্ষা সনদ দেখিয়ে অভিযোগকারিগণ বলেন, এই সনদ এর মাধ্যমে দেখা যাচ্ছে বড় বোন মনি চাকমার শিক্ষা সনদ অনুসারে ছোট সুপ্রিয়া চাকমা দেড় বছরের বড়। এথেকেও বুঝা যায় যে, মনি চাকমা তার প্রদত্ত শিক্ষা সনদটিতে জালিয়াতি করেছেন।

তারা লিখিত বক্তব্যে জানান, মণি চাকমার প্রকৃত নাম সুপ্রিয়া চাকমা, পিতা- লাল মনি চাকমা, মাতা-কৃপাদেবী চাকমা ও স্বামী-প্রেমনেন্দু চাকমা। তিনি হলফনামা মূলে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন মনি চাকমা, পিতা মৃত আষাতোষ চাকমা নামে।
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনি চাকমার প্রকৃত পিতা লাল মনি চাকমা তার ভাইয়ের সাথে রাঙামাটি শহরের কলেজ গেইট এলাকায় বহাল তবিয়তে বসবাস করছেন। তার এই পরিচয় আত্মগোপন করে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করে তিনি নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন। যদিও নির্বাচন নিয়েও নানা প্রশ্ন রয়েছে।

সাংবাদিক সম্মেলনে দাবি করা হয়, দেশ ও জনগণের সাথে প্রতারণার দায়ে কথিত মণি চাকমার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ এবং তার নির্বাচিত পদ পদবী বাতিল পূর্বক আনইগত ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী বলে এলাকার সাধারণ মানুষ মনে করে। এই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বরকল উপজেলার স্থানীয় বাসিন্দা মো: হাসান, মো: মেহেদী হাসান, রফিকুল ইসলাম এবং ফরিদ মোল্লাসহ স্থানীয় জনসাধারণ।

এদিকে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে বরকল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনি চাকমার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে এটি সম্পূর্ণ সাজানো ষড়যন্ত্র। এসব অভিযোগের কোনো সত্যতা নেই। তিনি বলেন ‘একজন মানুষের দুই’শ নামও থাকতে পারে’ নাম কোনো বিষয় না।

অভিযোগকারিরা বলেন, আমাদের কাছে সুষ্পষ্ট তথ্য প্রমান রয়েছে এবং আমরা এ ব্যাপারে আইনীভাবেও লড়তে প্রস্তুত রয়েছি। তারা বলেন, যিনি নিজের জন্মপরিচয় নিয়ে প্রতারণা করেন তিনি সাধারণ মানুষের আরো বড় প্রতারণা করতে পারেন, কাজেই এমন ব্যক্তির গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকার কোনো অধিকার নেই।

এদিকে বরকল উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সন্তোষ কুমার চাকমা মতামত জানতে চাইলে তিনি বলেন, চেয়ারম্যান মনি চাকমাকে আমরা ছোট বেলা থেকেই সুপ্রিয় চাকমা নামে চিনতাম। তার বাবাকে আমরা লালমনি চাকমা হিসেবেই চিনে এসেছি। তিনি এখনো জীবিত রয়েছেন। তিনি আরো বলেন, মনি চাকমা নামধারী সুপ্রিয় চাকমা ছোট বেলায় বরকলের বিল্যাছড়া হাই স্কুলে এবং পরবর্তীতে রাঙামাটি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মনি চাকমা ৯১/৯২ সালের দিকে রাঙামাটি শহরের উপজাতীয় ছাত্রী হোস্টেলে (বর্তমানে সরকারি মহিলা কলেজ) থেকে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত অভিযোগকারিরা এসব তথ্য জানিয়ে বলেন, সেই সময়কার বেশ কয়েকজন পাহাড়ি নারী যারা মনি চাকমার সহপাঠি হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তারা সকলেই নিশ্চিত করবে যে, মনি চাকমার আসল নাম সুপ্রিয় চাকমা।