পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডে গণশুনানী অনুষ্ঠিত

373

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

নাগরিক সমাজের সমস্য ও উন্নয়ন চাহিদা জানতে গণশুনানী করেছে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড। আয়োজনে । বুধবার (২৯ ডিসেম্বর) সকাল ৯.৩০ টায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে বোর্ডের প্রধান কার্যালয়ে এ গণশুনানী অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা।

গণশুনানীতে রাঙামাটির বিভিন্ন বিভাগ/দপ্তর/সংস্থার প্রতিনিধিবৃন্দ ও বিভিন্ন পর্যায়েন কলেজ/বিশ^বিদ্যালয় হতে আগত সেবা প্রত্যাশী ছাত্র/ছাত্রীবৃন্দ ও স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ অংশগ্রহণ করেন। চেয়ারম্যান গণশুনানীতে অংশগ্রহণকারী উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং বোর্ডের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড বিষয় নিয়ে উন্মুক্ত আলোচনা করা হয়।

এ সময় চেয়ারম্যান বলেন, পার্বত্য এলাকার জনমানুষের দোূরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দিতেই আজকের গণশুনানীর আয়োজন। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড দীর্ঘ চারদশকের বেশী সময় ধরে তিন পার্বত্য জেলায় বিভিন্ন ধরনের গুরুত্বপূর্ণ ও উল্লেখযোগ্য উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। সবশ্রেণী পেশা জীবি মানুষ যাতে সেবা পায় সেলক্ষ্যে আজকের গণশুনানী আয়োজন। গণশুনানীতে যেসব মতামত ও পরামর্শ উপস্থাপন হয়েছে সেগুলো অত্যন্ত গুরুত্বসহকারে লিপিবদ্ধ করে আগামীতে সে অনুযায়ী বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হবে। তিনি আরো বলেন- পার্বত্য এলাকায় যেখানে আগামী ১০ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে বিদ্যুৎ পৌছানো সম্ভব না। সেইসব এলাকায় ৪০হাজার পরিবারের মাঝে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডে বিনামূল্যে সৌর বিদ্যুৎ প্রদান করবে।

সেবা প্রত্যাশী জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে তিন পার্বত্য জেলার বিভিন্ন উপজেলায় দুর্গম এলাকার জনমানুষের চাহিদার ভিত্তিতে রাস্তা, ব্রীজ, কালভার্ট প্রভৃতি গ্রহণসহ উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড দৃশ্যমান হওয়ায় ভূয়সী প্রশংসা করেন। এছাড়া অংশগ্রহণকারীবৃন্দ বক্তব্য প্রদান করেন এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের মাননীয় চেয়াম্যান এর বরাবর রাস্তা, কালভার্ট, ব্রীজ, সোলার প্যানেল পাওয়ার আবেদন করেন।

এসময় পার্বত্য চ্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নুরুল আলম চৌধুরী (অতিরিক্তসচিব), সদস্য প্রশাসন ইফতেখার আহমেদ, সদস্য বাস্তবায়ন মোহাম্মদ হারুন-অর-রশীদ (উপসচিব), মংছেনলাইন রাখাইন, উপপরিচালক; কাইংওয়াই ম্রো, গবেষণা কর্মকর্তাসহ বোর্ডের অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।