পাহাড়ের স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষমতাসীনদের শাখায় পরিণত হয়েছে

462

manabadikar-pic-10-12-2016

॥ মোঃ হান্নান ॥

মানবাধিকার দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় (সন্তু) লারমা বলেছেন, পাহাড়ের নানাভাবে মানবাধিকার লঙাঘন হচ্ছে। চুক্তি পরবর্তী স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো নিয়ে যে আইন করা হয়েছে, তা এখনও বাস্তবায়ন করা হয়নি।

এই সুবাদে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষমতাসীন দলের শাখা অফিসে পরিণত হয়েছে। সরকার চুক্তির পুর্নাঙ্গ বাস্তবায়ন না করে এ অঞ্চলের মানুষকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে দিচ্ছে না। চুক্তির পরও পাহাড়ে আজ যে অস্ত্রের ঝনঝনানি তার জন্য দায়ী সরকার, সরকারই চুক্তির পর ইউপিডিএফ নামে চুক্তি বিরোধী এই সশস্ত্র সংগঠনের জন্ম দিয়েছিল।

তিনি বলেন, সেনা শাসনের কারনে পার্বত্যাঞ্চলে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। সাধারণ পাহাড়িদের উপর সেনা কর্তৃত্বের কারণে নানাভাবে তারা শোষন, নিপীড়নের নিপীড়নের শিকার হচ্ছে, এভাবেই পাহাড়ের মানুষের মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে।

শনিবার বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, রাঙামাটি জেলা শাখার আয়োজনে বিশ্ব মানবাধিকার দিবস উপলক্ষ্যে এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

সন্তু লারমা আরো বলেন, জুম্ম জনগণের প্রতি শাসক গোষ্ঠীর শোষণ নিপীড়নের পাশাপাশি সাংবিধানিকভাবে পাহাড়ের জনগোষ্ঠী সমূহের জাতি পরিচয় অস্বীকার করে তাদের নানা নামে আখ্যায়িত করা হচ্ছে। এটাও মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং মৌলিক অধিকার খর্ব করার সামিল।

রাঙামাটি শিল্পকলা একাডেমীতে আলোচনা সভায় বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের সদস্য বাঞ্চিতা চাকমার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক প্রকাশ কান্তি চৌধুরী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শফিকুল সারোয়ার। এর আগে সকালে দিবসটি উপলক্ষ্যে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়। র‌্যালীটি জেলা প্রশাসন কার্যালয় থেকে শুরু হয়ে শিল্পকলা একাডেমী চত্তরে গিয়ে শেষ হয়।