প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীর সাথে দাইয়ূ’র মানবসম্পদ প্রতিনিধিদলের সাক্ষাত

207

 

স্টাফ রিপোর্ট- ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, দৈনিক রাঙামাটি (প্রেস বিজ্ঞপ্তি):  প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি’র সাথে বিশ্বখ্যাত কোরিয়ান ‌‌দাইয়ূ ই এন্ড সি কনস্ট্রাকশন কোম্পানির গ্লোবাল এইচআর এন্ড সার্ভিস টিমের এক সৌজন্য সাক্ষাত ও মতবিনিময় গত ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ইস্কাটনস্থ প্রবাসী কল্যাণ ভবনে অনুষ্ঠিত হয়। মতবিনিময় অনুষ্ঠানে দাইয়ূ ই এন্ড সি’র পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করেন কোম্পানির মানব সম্পদ বিভাগের জেনারেল ম্যানেজার মি. জুং হন লিম খরস। সাক্ষাতকালে বাংলাদেশ থেকে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে নির্মান প্রতিষ্ঠান দাইয়ূতে অধিক পরিমাণে কর্মী নিয়োগের অনুরোধ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো’র মহাপরিচালক মোঃ সেলিম রেজা ও শ্রম-অভিবাসন বিশ্লেষক হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

আগামীতে আরো বেশি বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগের আহ্বান জানিয়ে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী বলেন, কোরিয়ান দাইয়ূ ই এন্ড সি কোম্পানি সারা বিশ্বে সুনামের সাথে কন্সট্রাকশন খাতে কর্মী নিয়োগ করে থাকে। তিনি বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগে দাইয়ূ ই এন্ড সিকে সকল ধরনের সহযোগিতার আশ্বস দেন। এ সময় কোরিয়ান কনস্ট্রাকশন কোম্পানির গ্লোবাল এইচআর এন্ড সার্ভিস টিমের জেনারেল ম্যানেজার মি. জুং হন লিম বাংলাদেশের কর্মীদের কাজের প্রশংসা করেন। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশি কর্মীরা অনেক পরিশ্রমী ও বিশ্বস্ত। শ্রম-অভিবাসন বিশ্লেষক হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, বাংলাদেশের কর্মীরা পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অত্যন্ত সুনাম ও বিশ^স্ততার সাথে কাজ করছে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অবকাঠামোগত উন্নয়নে বাংলাদেশের কর্মীদের অবদান রয়েছে। তাই দাইয়ূ তাদের বিভিন্ন প্রজেক্টে আরো বেশি বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগ করলে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে তারা তাদের সুনাম ও দক্ষতা বজায় রাখবে। এখানে উল্লেখ্য দাইয়ূ কোম্পানির আলজেরিয়া, নাইজেরিয়া, লিবিয়া, ইউএই, কেএসএ, কুয়েত, ইরাক, কাতারসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশী কর্মীরা কাজ করছে। অতিদ্রুত তারা ওমান, লিবিয়া ও ইরাকের বিভিন্ন প্রজেক্টে বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে।

সাক্ষাতকালে অন্যান্যের মধ্যে যুগ্মসচিব ও মন্ত্রীর একান্ত সচিব মুঃ মোহসিন চৌধুরী, কোরিয়ান দাইয়ূ ই এন্ড সি কনস্ট্রাকশন কোম্পানির গ্লোবাল এইচআর এন্ড সার্ভিস টিমের ম্যানেজার হূনুউ সিউ প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।
পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরো প্রধান।