ফোন পেয়ে করোনা রোগীর বাড়িতে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিল চন্দ্রঘোনা থানা পুলিশ

342

|| কাপ্তাই প্রতিনিধি ||

কাপ্তাইয়ের চন্দ্রঘোনা থানাধীন ডলুছড়ি এলাকার বাসিন্দা মো. ইউসুফ করোনা আক্রান্ত হয়ে ১ সপ্তাহ আগে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। প্রশাসন তাঁর পরিবারকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলেছে। এক সপ্তাহ যাবত ওই পরিবারের কেউ ঘর থেকে বের হতে পারেনি। এতদিন তাঁদের যা খাদ্য সামগ্রী ছিল সব ফুরিয়ে গেছে।

করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবরে প্রতিবেশীরা তাঁদের কাউকে ঘরের বাইরে যেতেও দিচ্ছেনা। উপায় না দেখে ইউসুফের মেয়ে তানিয়া আক্তার সরকারি জরুরী সেবার নাম্বার (৯৯৯) পেয়ে ফোন দিয়ে খাদ্য সহায়তা চান। পরে ফোন পেয়ে সোমবার (১২ জুলাই) দুপুরে তাঁদের ঘরে চাল, আলুসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয় চন্দ্রঘোনা থানা পুুলিশ সদস্যরা।

জানতে চাইলে তানিয়া আক্তার মুঠোফোনে বলেন, বাবা করোনা আক্রান্ত হয়ে ১ সপ্তাহ আগে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এতদিন ঘরে খাদ্য সামগ্রী যা ছিল ফুরিয়ে গেছে। বাইরে গিয়ে খাদ্য সামগ্রী গিয়ে আনবে, এই সুযোগটিও দিচ্ছেনা প্রতিবেশীরা। অনেকটা নিরুপায় হয়ে ৯৯৯ এ ফোন দেই।

পরে পুলিশ এসে চাল, সবজিসহ বিভিন্ন রকমের খাদ্য সামগ্রী দিয়ে যান। কঠিন সময়ে পুলিশদের সহযোগিতা পেয়ে খুশি লাগছে। এবিষয়ে জানতে চাইলে চন্দ্রঘোনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, করোনা আক্রান্ত ইউসুফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আছেন। তার পরিবারের লোকজন বাজার করতে বাইরে যেতে চাইলেও এলাকাবাসীর বাধার মুখে যেতে পারছেনা। দূর্গম এলাকাটিতে নৌকায় করে নদী পার হয়ে যেতে হয়। ৯৯৯ এর মাধ্যমে ফোন পেয়ে তাৎক্ষনিক ওই পরিবারকে চাল ও নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হয়। এদিকে চন্দ্রঘোনা থানা পুলিশের এমন মানবিক কার্যক্রম সুধীমহলে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে।