বঙ্গবন্ধু স্বপরিবারে আমাদের অতিথি হয়েছিলেনঃসেলিম

496

॥ শহিদুল ইসলাম হৃদয় ॥

মহামারী করোনা ভাইরাসের কারনে সারা দেশের ন্যায় রাঙামাটিতেও চলছে অঘোষিত লকডাউন। সরকারি নির্দেশনায়  কর্মহীন হয়ে পড়া খাদ্যাভাবে থাকা এসব পরিবারকে প্রশাসনের পাশাপাশি নিজ সামার্থ্য অনুযায়ী  ত্রাণ সামগ্রী   উপহার নিয়ে দুস্থদের পাশে দাঁড়াচ্ছে সমাজের নানান শ্রেণীর মানুষ।

এদিকে এই পরিস্থিতিতে রাঙামাটির ঐতিহ্যবাহী ব্যবসায়ী মরহুম হাজী ইউছুপ আলী কোম্পানী পারিবারের সন্তান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও রাঙামাটি লঞ্চ মালিক সমিতির সভাপতি মঈন উদ্দিন সেলিম নিজ অর্থায়নে দৈনিক কর্মহীন ও হতদরিদ্র ৩০-৫০ টি পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করে যাচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার (১৬এপ্রিল) সকালে তার নিজ বাসভবনে সিএইচটি টাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমের সাথে একান্ত সাক্ষাৎকালে তিনি জানান, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে প্রথমে ৩০০ টি পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম হাতে নেই। এসময় সাধারণ জনগনের হাহাকার দেখে আমি আশাহত হয়েছি।

পরবর্তিতে আমাদের প্রাণ প্রিয় সংসদ সদস্য জননেতা দীপংকর তালুকদার (এমপি)’র পরামর্শে দৈনিক ৩০-৫০ টি পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম হাতে নেই, যা ১লা এপ্রিল থেকে চলমান রয়েছে।

তিনি বলেন, সকল রাজনৈতিক নেতাকর্মী, সমাজের বিত্তশালী ও বিভিন্ন সংগঠনের কর্মীরা যদি স্ব স্ব অবস্থান থেকে এগিয়ে আসে তাহলে করোনা ভাইরাসের এই দূর্যোগ মোকাবেলা করা সহজ হবে এবং এই  ভাইরাস মোকাবেলায় যদি আমরা সবাই একত্রিত হয়ে কাজ করি তাহলে আমাদের রাঙামাটির একটি মানুষ ও না খেয়ে থাকবে না বলে আমি মনে করি।

তিনি আরও বলেন, নাম প্রচারের জন্য বা লোক দেখানোর জন্য নয়, বঙ্গবন্ধুর আদর্শই আমাকে অনুপ্রাণিত করেছে। তরুন প্রজন্মের জানা উচিত ১৯৭০ সালে বঙ্গবন্ধু আমার বাবার আমন্ত্রণে স্বপরিবারে আমাদের বাড়িতে অতিথি হিসেবে এসেছিলেন। সুতরাং আমরা পারিবারিকভাবেই আওয়ামী পরিবারের সন্তান।

উলেক্ষ্য, আসন্ন পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে নিম্নবিত্ত ও হতদরিদ্রদের জন্য বিশেষ কার্যক্রম হাতে নিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।