বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার ফেষ্ট- ২০১৬ উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন

457

Flower

ঢাকা ব্যুরো অফিস, ১০ মার্চ ২০১৬, দৈনিক রাঙামাটি(সংবাদ বিজ্ঞপ্তি) : আগামী ২৯ ও ৩০ মার্চ  খামার বাড়ি কৃষিবিদ ইন্সিটিউট এর কনভেনশন সেন্টারে দেশে উৎপাদিত ফুল নিয়ে প্রথমবারের মতো ২ দিনব্যাপী এই মেলার আয়োজন করা হচ্ছে। আজ ১০ মার্চ সকালে ঢাকা রিপোটারস ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ  করেন বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটি (বিএফএস) এর সভাপতি আব্দুর রহিম। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাচ্চু খান, লোকমান হোসেন, দুলাল সরকার, নুর মোহাম্মাদ, আফসার উদ্দিন, দেলোয়ারা খানম, বুশরা আলম, রিয়াজুদ্দিন মোশারফ, জহির উদ্দিন বাবর, মাহবুবুর রহমান, মো. মাহবুবুর রহমান। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, এক সময় সৌখিনতায় মানুষ বাড়ির আঙ্গিনায় ফুলের গাছ রোপণ করত এবং পুজো পার্বণেই ফুলের ব্যবহার হতো।

বর্তমানে বাংলাদেশে ফুল অর্থকারী ফসল হিসাবে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন ও বিপন্ন হচ্ছে। ১৯৮৩ সাল থেকে ৩০ শতক জমিতে রজনীগন্ধা ফুল চাষের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে বাণিজ্যিকভাবে ফুল উৎপাদন শুরু হয়। বর্তমান দেশে ২৩টি জেলায় ৮/১০ হাজার হেক্টর জমিতে ১৫/১৬ হাজার কৃষক সরাসরি বিভিন্ন জাতের ফুল উৎপাদনের সাথে জড়িত প্রায় ২০ লক্ষ মানুষ এই সেক্টরের সাথে পরস্পর জীবন জীবিকায় নিয়োজিত। হাজার হাজার শিক্ষিত বেকার ফুল চাষ ও  ফুল ব্যবসা করে দূর করেছে বেকারত্ব। দেশের উৎপাদিত ফুল দেশের চাহিদা মিটিয়ে কিছু কিছু বিদেশে যাচ্ছে। বছরে প্রায় সাত-আট কোটি শত কোটি টাকার ফুল আমাদের দেশে উৎপাদিত হচ্ছে।

ফুল উৎপাদন ও বিপন্ন কার্যক্রমে সরকারি বেসরকারি উদ্যোগ অব্যাহত আছে। সরকারি, বেসরকারি জাতীয় অনুষ্ঠানসহ বিয়ে, জন্মদিন ও বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে ফুলের ব্যবহার ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। আধুনিক পদ্ধতিতে নতুন জাতের ফুল উৎপাদন ও বাজারজাত হচ্ছে। আন্তর্জাতিক বাজারে অনেক কোম্পানির সাথে পরিচিতি ও স্থানীয় সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে সম্পর্ক স্থাপিত হচ্ছে। দেশের কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ফ্লোরিকালচারের উপর একটি বিভাগ স্থাপিত হয়েছে। দেশি ফুলের বৈচিত্রের সাথে মানুষের পরিচয় আরও বাড়ানোর উদ্দেশ্যে, ফুলের সামগ্রিক ব্যবহার আরও বৃদ্ধি করা এবং দেশিয় ও আন্তর্জাতিক বাজার সম্প্রসারণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটি (বিএফএস) আগামী ২৯ ও ৩০ মার্চ “বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার ফেষ্ট-২০১৬” নামে দুই দিনব্যাপী একটি মেলার আয়োজন করতে যাচ্ছে।

দেশের মানুষ এখন ফুল প্রচুর ব্যবহার করছে সে কারণে আমাদের দেশের ফুল চাষ, ফুলের বাজার দিন দিন সম্প্রসারিত হচ্ছে। তবে ফুলের গুণগত মান বজায় রাখা এবং বাছাইকৃত প্যাকেজিং ফুল ক্রয় বিক্রয়ের প্রচলন নাই বললেই চলে। ফুল সেক্টরকে টেকসই, শক্তিশালীকরণ ও রপ্তানীযোগ্য করতে হলে আন্তর্জাতিক বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় আমাদের দেশের উৎপাদিত ফুলও আধুনিক প্রযুক্তির প্রয়োগের মাধ্যমে উৎপাদক, ব্যবসায়ী ও ভোক্তা সকলেরই মানসম্মত বাছাইকৃত প্যাকেজিং ফুল ব্যবহারের প্রতি অভ্যাস গড়ে তোলার প্রয়োজন আছে। একারণেই “বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার ফেষ্ট-২০১৬”-এর আয়োজন। এই আয়োজনের যাত্রা শুরু হল, প্রতি বছরই এই ধরনের ফেস্টিভ্যালের আয়োজন করা হবে।

সম্পাদনা- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান