বাঙ্গালহালিয়ায় প্রার্থীকে জেতানোর অভিযোগে ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

345

॥ আজগর আলী খান, রাজস্থলী ॥

রাঙামাটির রাজস্থলী উপজেলাধীন ৩নং বাঙ্গালহালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অর্থের বিনিময়ে ভোট কারচুপি করে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীকে জিতিয়ে দেওয়ার অভিযোগ এনে রিটার্নিং অফিসারসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন মোঃ মোতালেব হোসেন নামের এক প্রার্থী। মোরগ প্রতীকে নির্বাচন করা মোতালেব নিজেকে ক্ষমতাসীন দলের একজন সক্রিয় সদস্য বলেও দাবী করেছেন। মামলা নং ৪৯৮/৫/১২/২০২১। মামলার পূর্বে বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাচন অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগও দিয়েছেন বলে প্রতিবেদককে জানিয়েছেন তিনি।
এদিকে একটি অভিযোগ পেয়েছেন এবং তা সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট পাঠানো হয়েছে এবং পরবর্তীতে প্রাপ্ত নির্দেশনার আলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা রিটার্নিং অফিসার উৎপল বড়–য়া।

অভিযোগে মোতালেব উল্লেখ করেন, ২৮শে নভেম্বর/২১ অনুষ্ঠিত ৩য় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বাঙ্গালহালিয়া ইউপি’র ১নং ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী হই এবং ইসলামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে পরিকল্পিতভাবে মোরগ প্রতিকের এজেন্ট প্রার্থী মোতালেবের মেয়ে মরিয়ম আক্তার ময়নাকে মহিলা বুথ থেকে ডেকে নিয়ে আনুমানিক ১০/১৫ মিনিট পর্যন্ত পার্শ্বোক্ত পুরুষ বুথে নিয়ে বসিয়ে রাখা হয়।

এছাড়াও নির্বাচন শেষ হওয়ার অনেকক্ষণ পূর্বেই বেলা ১২ টার সময়ই প্রিজাইডিং অফিসার কর্তৃক রেজাল্ট শীটে সকল প্রার্থীর এজেন্টদের কাছ থেকে স্বাক্ষর নিয়ে নেওয়া হয়। যা সম্পূর্ণ বিধি বর্হিভূত কাজ। বেলা সাড়ে ৩টার সময় ব্যালট বই এবং ব্যালট বক্স নিয়ে প্রিজাইডিং অফিসার একাই অন্য আরেকটি রুমে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দীর্ঘক্ষণ সেখানে অবস্থান করেছিলেন। সেখানে অন্য কেউ ছিলোনা। টিউবওয়েল প্রার্থীর নিকট থেকে আনুমানিক ৩টা থেকে সাড়ে ৩টার সময় নির্বাচনে কর্তব্যরত লোকেরা একটি টাকার বান্ডিল গ্রহণ করেন।

এসবের প্রত্যক্ষদর্শী রয়েছে বলেও দাবি করেছেন মোতালেব হোসেন। নির্বাচন পরবর্তী সময়ে ভোট গণনাকালীন সময়ে ইউনিয়ন পরিষদের দফাদার আল মামুন নিজেই বুথের মধ্যে অবস্থান করছিলো এটার কতটুকু বৈধতা রয়েছে? ভোট গণনা শেষ করে একটি রেজাল্টশীট সংশ্লিষ্ট প্রার্থীদের এজেন্টদের দেওয়ার নিয়ম থাকলেও সেটি না করে কোনো রকম স্বাক্ষর নানিয়ে অবৈধ পন্থায় একটি রেজাল্টশীট বিদ্যালয়ের বারান্দায় টাঙ্গিয়ে উক্ত স্থান ত্যাগ করেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা। বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন মোঃ মোতালেব হোসেন।

প্রতিবেদকের মুঠোফোনে মোতালেব জানান, তার দলের একজন নেতার প্রত্যক্ষ ইন্ধনে বিএনপি সমর্থক প্রার্থীকে টাকার বিনিময়ে জিতিয়ে দেওয়া হয়েছে। পুরো এলাকার আপামর মানুষের ভালোবাসা তার পক্ষে থাকলেও ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে মাত্র ৩ ভোটের ব্যবধানে তাকে পরিকল্পিতভাবে হারানো হয়েছে বলেও দাবি করেছেন বাদী মোতালেব হোসেন।

তার লিখিত মামলার এজাহারে বিবাদীদের নাম জানা যায়, টিউবওয়েল প্রতিকের প্রার্থী, এমদাদুল হক মিলন, প্রিজাইডিং অফিসার (প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ভারপ্রাপ্ত) আবদুল করিম, স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হারাধন কর্মকার, বিদ্যালয় দফাদার, আল মামুন, উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং অফিসার উৎপল বড়ুয়া, জেলা নির্বাচন অফিসার রাঙামাটি সদর, সচিব স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, সচিব বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন, ও প্রধান নির্বাচন কমিশনার নির্বাচন ভবন ঢাকা। বিবাদীদের নাম উল্লেখ করে যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ আদালত রাঙামাটি পার্বত্য জেলা বরাবরে মামলা দায়ের করা হয়। মামলার এজাহারে আরো উল্লেখ করা হয়, ৩নং বাঙালহালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ সাধারণ নির্বাচন ২০২১ইং মোতাবেক ২৮/১১/২০২১ তারিখে ব্যালেটের মাধ্যমে গৃহীত ০৩ বাঙালহালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সাধারন সদস্য পদে ১নং ওয়ার্ড সদস্য প্রার্থী এমদাদুল হক মিলনকে অবৈধ, বেআইনী ও অনির্বাচিত ঘোষণা সহ উক্ত ওয়ার্ডের ব্যালেট ও মুড়ি কপি তলব পূর্বক অবৈধ বেসরকারি ফলাফল বিজ্ঞ আদালত যোগে যাচাই অন্তেঃ ভোট পুণঃ গণানার পর রায় ও ডিগ্রী প্রচার এবং ১নং বিবাদীর শপথ গ্রহণ স্থগিত ও নির্বাচন পরবর্তী কার্যক্রম স্থগিত সহ ১নং বিবাদীকে নির্বাচিত ঘোষণা করিয়া গেজেট প্রকাশ অবৈধ ঘোষণায় বাদীকে নির্বাচিত ঘোষনা করা।
বিষয় নিয়ে রিটার্নিং অফিসার আবদুল করিম বলেন, বাদী আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ে করেছে। আমাদের হাতে উপযুক্ত প্রমানাদী রয়েছে।