বান্দরবান ও জুরাছড়িতে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ পালন

392

p.....5

জুরাছড়ি সংবাদদাতা, ৯ ডিসেম্বর ২০১৫, দৈনিক রাঙামাটি : সামাজিক ও মানসিকভাবে প্রতিনিয়ত পাহাড়ি নারীরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। এ অবস্থা দেশের তথা সমাজের জন্য শুভ নয়। নারীদের সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা রাষ্ট্র ও সমাজের দায়িত্ব। এ দায়িত্ব সমাজ ও রাষ্ট্র এড়িয়ে যেতে পারেনা। বুধবার জুরাছড়ি উপজেলায় নারী প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবসে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি বক্তব্যে উপজেলা চেয়ারম্যান উদয় জয় চাকমা একথা বলেন।

‘জয়িতা অন্বেষনে বাংলাদেশ’ কার্যক্রমের আওতায় উপজেলা মহিলা বিষয়কের উদ্যোগে সকালে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.লিয়াকত আলী সভাপতিত্ব করেন। সভায় প্রধান অতিথি উপজেলা চেয়ারম্যান উদয় জয় চাকমা,  বিশেষ অতিথি ভাইস চেয়ারম্যান শেফালী দেওয়ান,  জুরাছড়ি, বনযোগীছড়, দুমদুম্যা চেয়ারম্যানগণ, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ নাসিম হায়দার, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তরুন চাকমা, রিস্সে সেন্টারের ইন্সেটেক্টর মোঃ মরশেদুল আলম, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা দুদক কমিটির সভাপতি নন্দ দুলাল চাকমা, জেএসএসের সাধারণ সম্পাদক সুমিত চাকমা সহ সরকারী বেসরকারী কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় ডেবছড়া গ্রামে অর্থনৈতিক ভাবে স্বাবলম্বী তারা সুন্দরী চাকমা, সামাজিক ও শিক্ষায় ছেলে মেয়েদের উচ্চ শিক্ষায় প্রতিষ্টিত জ্যো¯œা দেওয়ান, সফল জননী চম্পা রানী চাকমা, নির্যাতনের বিভিসিকা মধ্যেও সাবলম্বী মিমি চাকমা, সমাজ উন্নয়নে অবদানে জরিনা চাকমাকে সংবর্ধনা ও সনদ প্রদান করা হয়। এ সময় বক্তারা বলেন, নারীদের নির্যাতনের ফলে নারীর মানবাধিকার খর্ব হয়।

পুরুষের তুলনায় নারীদের নি¤œ সামাজিক মর্যাদা, সুশিক্ষার অভাব, দারিদ্র, অর্থিক নির্ভরশীলতা, পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা, বিভিন্ন কুসংস্কার, যৌতুক ইত্যাদির কারণে নারী নির্যাতন ঘটে থাকে। তবে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি বা মূল্যবোধের মধ্যেই নারীর নারীর প্রতি সহিংস আচারণ মিশে রয়েছে। বক্তারা আরো বলেন, ঘরেবাইরে নারী ও মেয়ে শিশুর প্রতি বৈষম্য, ভয় ও নির্যাতনমুক্ত জীবনের অধিকারকে সুনিশ্চিত করার দায়িত্ব নারী ও পুরুষ উভয়েরই। আমাদের নিরাবতা প্রকারান্তরে অত্যাচারীকেই সমর্থন করে। সভ্য সমাজে নারী নির্যাতনকারীর কোন স্থান হতে পারে না।

বান্দরবানে নারী নর্যাতন প্রতিরোধ দিবস :
বান্দরবান প্রতিনিধি, ৯ ডিসেম্বর ২০১৫, দৈনিক রাঙামাটি :  পার্বত্য বান্দরবানে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে বুধবার সকালে বান্দরবান জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে এক আলোচনা সভা ও গুণী ৫ নারীকে বিভিন্ন পর্যায়ে অবদানের জন্য জয়িতা পুরস্কার দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মিজানুল হক চৌধুরী। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ আবু জাফরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহকারী পুলিশ সুপার মাহমুদ হাসান, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সুস্মিতা খিসা।

অনুষ্ঠান শেষে নিজ উদ্যোগে অর্থনৈতিক সফল্য অর্জনকারী, শিক্ষা ও চাকুরী ক্ষেত্রে সাফল্য, সফল জননী নারী, নির্যাতিত নারীর কর্মময় সফল্য এবং সমাজ উন্নয়নে অবদানের স্বীকৃতি সরূপ ৫নারীকে জয়িতা পুরস্কার দেয়া হয়।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান