বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে কিশোর কিশোরীদের এগিয়ে আসার আহ্বান

231

p....4

স্টাফ রিপোর্টার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৬, দৈনিক রাঙামাটি : রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মোঃ সামসুল আরেফিন বলেছেন, সরকার প্রচেষ্টা চালালে ইসলাম ও হিন্দু ধর্মের ন্যায় অন্যান্য ধর্মের ক্ষেত্রেও বিবাহ নিবন্ধন প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব। এটি চালু করা গেলে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে। পাশাপাশি শিশু জন্মের পর পরই জন্ম নিবন্ধন যদি সঠিকভাবে করতে পারলেও এটি প্রতিরোধ করা সম্ভব। তিনি বলেন, আমরা যদি বাল্য বিবাহের কুফল সম্পর্কে মানুষকে জানাতে পারি যে বাল্য বিবাহ সমাজকে কতটুকু পিছিয়ে রাখে তাহলে ভবিষ্যতে সমাজ আরো অনেক এগিয়ে যাবে। তিনি বলেন, সচেতন নাগরিক হওয়া আমাদের খুবই জরুরি। আর এই সচেতনতা শুরু হয় কিশোর কিশোরী বয়স থেকেই। সচেতনতায় বাল্য বিবাহ রোধ সম্ভব। সমাজে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে এই কিশোর কিশোরী ক্লাবগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস।

রোববার রাঙামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইন্সটিটিউটে জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার আয়োজনে ক্লাবে সংগঠিত করে সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তনে কিশোর-কিশোরীদের ক্ষমতায়ন শীর্ষক কর্মসূচির আওতায় পিয়ার লিডারদের রিফ্রেশার্স প্রশিক্ষণে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা কনিকা চাকমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ব্র্যাকের প্রশিক্ষক কামরুল ইসলাম, কলমপতি ইউনিয়নের কিশোর কিশোরী ক্লাবের সদস্য সঞ্জয় কুমার দাশ, সুবর্ণা দাশ। স্বাগত বক্তব্য দেন জুরাছড়ি উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তরুণ চাকমা। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের বীথি চাকমা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, আমরা জানি যে মানুষের জীবনের যে কয়েকটি সময় আসে তার মধ্যে শিশু কাল, কিশোর এবং তরুণ ও বৃদ্ধকাল। প্রত্যোকটি কাল মানুষের জীবনের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। শিশুদের জন্য মানুষের শৈশব অবস্থা এটা যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি কিশোর বয়সটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ, কারণ তারা কিশোর কিশোরী বয়সে নিজেদেরকে অনেকটা বড় ও স্বাধীন মনে করে। কিন্ত এই স্বাধীনতা ভোগ করতে গিয়ে তারা সামাজিক শৃঙ্খলা থেকে বের হয়ে যেতে পারে। সাধারণত এই বয়সেই কিশোর কিশোরীদের মধ্যে নেশা খাওয়াটা শুরু হয়। এদের বিষয়ে যদি আমরা সচেতন না হই এই নেশার গ্রাস ছোবল মেরে কিশোর কিশোরীদের মেরুদন্ডহীন করে ফেলবে ভবিষ্যতে আর কখনোই তারা মেরুদন্ড সোজা করে দাঁড়াতে পারবে না। তিনি বলেন, কিশোর কিশোরীররাই আমাদের দেশের ভবিষ্যৎ নাগরিক এবং এই ভবিষ্যৎ নাগরিকদের আমরা যদি সঠিকভাবে গড়ে তুলতে না পারি তাহলে তাদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পরবে।

তিনি প্রশিক্ষণের সফলতা কামনা করে বলেন, সরকারের প্রচেষ্টায় আশা করি এই কিশোর কিশোরী ক্লাবের মাধ্যমে আমাদের সমাজে  সচেতনতা এবং তাদের নিজেদের পথচলাকে সুন্দর ও সুগম করে তুলতে পারবে। তিনি বলেন, যারা ইতিপূর্বে এ প্রশিক্ষণ কোর্স গ্রহণ করেছে তারা নতুন করে আবারো প্রশিক্ষণে যে সকল বিষয়ে তাদের সমস্যা ও প্রশ্ন ছিল সেগুলো নিরসন করতে পারবে। এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নতুন নতুন জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণে ২টি গ্রুপে ২দিন করে মোট ৪দিনব্যাপী প্রশিক্ষণে জেলার ৯৬জন কিশোর কিশোরী প্রশিক্ষণ গ্রহণ করবে।

পোস্ট- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান