বিলাইছড়িতে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা

551

p......5

বিলাইছড়ি সংবাদদাতা, ২৭ জানুয়ারি ২০১৬, দৈনিক রাঙামাটি : বুধবার বিলাইছড়িতে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। সকালে উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুরেশ কান্তি তংচঙ্গ্যা। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের প্রাক্তন চেয়ারম্যান চিংকিউ রোয়াজা, বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগ নেতা ও রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য স্মৃতি বিকাশ ত্রিপুরা, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য আব্দুল ওয়াদুদ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক অরুন বিকাশ চাকমা, সদস্য মিন্টু মারমা, মংইউচিং মারমা, শফিকুর রহমান শফি, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও বিলাইছড়ি উপজেলা পরিষদ প্রাক্তন চেয়ারম্যান জয়সেন তংচঙ্গ্যা, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও বিলাইছড়ি উপজেলা পরিষদ প্রাক্তন চেয়ারম্যান অমর কুমার তংচঙ্গ্যা, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও স্থানীয় সরকার পরিষদের প্রাক্তন সদস্য থুওলং পাংখোয়া, বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক ও রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য রেমলিয়ানা পাংখোয়া, বিলাইছড়ি আওয়ামী লীগ নেতা ও জেলা পরিষদ প্রাক্তন সদস্য অভিলাষ তংচঙ্গ্যা’সহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা বক্তব্য দেন।

সভায় প্রধান অতিথির বক্ত্যবে চিংকিউ রোয়াজা বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষের প্রতি খুবই আন্তরিক। পার্বত্য জেলায় আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলো যখন নীরহ মানুষের জীবন নিয়ে রক্তের হলিখেলা খেলছিল তখন কোন সরকার এই নীরহ মানুষের কথা চিন্তা করেনি এবং তাদের সাথে সমঝোতা করার আগ্রহ প্রকাশ করেনি একমাত্র জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কণ্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের সুখ শান্তির কথা ভেবে পার্বত্য শান্তি চুক্তি করেছে। এ চুক্তির মধ্য দিয়ে পার্বত্য অঞ্চলে সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে সহানুভুতি সম্প্রীতি ও সৌহাদ্যপূর্ণ পরিবেশ গড়ে ওঠেছে। তিনি এখানকার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের কথা চিন্তা করে পার্বত্য জেলা পরিষদে প্রতিটি সম্প্রদায়ের সদস্য নিয়োগ দিয়েছেন। যাতে করে প্রত্যেক সম্প্রদায়ের নৃ-গোষ্টীরা সুখ-দুঃখের কথা তাদের প্রতিনিধিদের বলতে পারে এবং সমস্যাগুলো নিরসন করতে পারে। পার্বত্য জেলা পরিষদের প্রত্যোক সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি নিয়োগ দিয়ে তিনি আবারো প্রমান করেছেন এই সরকার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সরকার। এই সরকার দেশের প্রতিটি গরিব-দুঃখির পাশে থেকে কল্যাণ করে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষামতায় থাকলে দেশের মানুষ শান্তিতে নিজ নিজ ধর্ম পালন করতে পারে। তিনি শেখ হাসিনার ২০২১ সালের রুপকল্প বাস্তবায়নে সকল নেতাকর্মিদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান।

পোস্ট- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান