বীমা খাতকে জনগণের সেবায় আরো সক্রিয় করতে হবে: ডিসি মিজানুর রহমান

354

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

‘বীমায় সুরক্ষিত থাকলে, এগিয়ে যাব সবাই মিলে’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে তৃতীয়বারের মতো রাঙামাটিতে বর্ণাঢ্য আয়োজনের পালিত হয়েছে জাতীয় বীমা দিবস। মঙ্গলবার (১ মার্চ) সকালে জাতীয় বীমা দিবস দিবস উপলক্ষ্যে শহরে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, আলোচনা সভাসহ রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়েছে।

রাঙামাটি জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক), মোহাম্মদ মামুন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মারুফ আহমেদসহ এবং বিভিন্ন বীমা প্রতিষ্ঠান হতে প্রতিনিধিগণ ও গণমাধ্যমকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, বীমা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশে^ অন্যান্য দেশে বীমা বাধ্যতামুলক হলেও দেশে এখনো এ নিয়ে মানুষের মাঝে পুর্ণ ধারণা নেই। না থাকার কারণে মানুষ বীমা নিয়ে তেমন আগ্রহী নয়। তাই মানুষের মাঝে ভ্রান্ত ধারণা দুর করে বীমায় আগ্রহী করাতে হবে। বীমা খাতকে জনগণের সেবায় আরো বেশী নিয়োজিত করতে হবে। প্রতিটি ঘরে ঘরে একটি করে বীমা করার আগ্রহ যদি গড়ে তুলো যায় তা হলে দারিদ্র অনেকাংশে বিমোচনে ভূমিকা রাখবে। তাই বিমা সেবাকে একটি নির্ভরযোগ্য আর্থিক নিরাপত্তা বিধানের মাধ্যম হিসেবে প্রতিষ্ঠার জন্য বিমা প্রতিষ্ঠানগুলোকে আরো নিষ্ঠা এবং পেশাদারির সঙ্গে কার্যক্রম পরিচালনার আহবান জানান।

উল্লেখ্য, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬০ সালের ১ মার্চ আলফা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিতে যোগদান করেন। বীমা পেশায় তার যোগদানের দিনটিকে স্মরণে রাখতে বাংলাদেশ সরকার ১ মার্চকে জাতীয় বীমা দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছে।