ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দিলেন প্রধানমন্ত্রীঃ রাঙামাটিতে ২৬৮ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেল

410

॥ মঈন উদ্দীন বাপ্পী ॥

বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগ আশ্রায়ণ প্রকল্প ২ এর আওতায় রাঙামাটি জেলায় ২৬৮ টি ‘ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে সারাদেশের ন্যায় প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধনের পর চাবি ও বিশেষ দলিল হস্তান্তর করা হয়েছে। সারা দেশে একযোগে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কন্ফারেন্সের মাধ্যমে এ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। শনিবার সকালে রাঙামাটির কুমার সমিত রায় জিমনেসিয়াম হলরুম থেকে আশ্রায়ণ প্রকল্পের আওতায় ‘ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ঘরের চাবি ও দলিল হস্তান্তর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রাঙামাটি জেলা সরাসরি যুক্ত হয়। এসময় রাঙামাটির সাংসদ দীপংকর তালুকদার এমপি, জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ, পুলিশ সুপার মীর মোদাছছের হোসেনসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, জেলা প্রশাসনের উদ্বর্তন কর্মকর্তাবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

আশ্রয়ণ প্রকল্প ২ এর আওতায় রাঙামাটি জেলায় ৭৩৬ টি ‘ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য ঘর বরাদ্ধ হয়েছে। ইতিমধ্যে জেলায় ২৬৮ টি ‘ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের ঘর তৈরি সম্পূর্ণ হওয়ায় শনিবার প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশের ন্যায় রাঙামাটিতেও উদ্বোধনের পর মালিকানা হস্তার করা হয়।

প্রথম পর্যায় সদর উপজেলায় ৬০টি, বরকল উপজেলায় ১৯টি, বাঘাইছড়ি উপজেলায় ৩৫টি, লংগদু উপজেলায় ৩৪টি, কাপ্তাইয়ে ৩০টি, নানিয়ারচর উপজেলায় ২৮টি ও রাজস্থলী উপজেলায় ৬২টি সম্পূর্ণ ঘরের মালিকানা হস্তার করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকি ঘরগুলো নির্মাণ হওয়ার পর মালিকানা হস্তান্তর করা হবে।

জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশীদ বলেন, প্রথম পর্যায়ে সারাদেশে ৬৯হাজার ৯০৪জন ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবার উপকারভোগীর তালিকায় ঠাঁই পেয়েছেন রাঙ্গামাটির ২৬৮টি পরিবার। প্রতিটি ঘর তৈরি করতে ১লাখ ৭১হাজার টাকা খরচ পড়েছে। ঘরগুলোর বেশিরভাগ কাজ চলমান রয়েছে।