মির্জা ফখরুলের উপর হামলার ঘটনায় রাঙামাটি বিএনপির প্রতিবাদ

276

স্টাফ রিপোর্ট- ১৮ জুন ২০১৭, দৈনিক রাঙামাটি:  রাঙামাটিতে পাহাড় ধ্বসের ঘটনায় নিহত ও আহতদের দেখতে এবং ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে রাঙামাটি আসার পথে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার শান্তির হাট এলাকায় বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়ি বহরে হামলা ও মারধরের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন, বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে রাঙামাটি জেলা বিএনপি। রোববার রাঙামাটিতে এসব কর্মসূচি পালন করে তারা।

এসময় বিএনপি নেতৃবৃন্দ তাদের বক্তব্যে বলেন, বর্তমান সরকার ত্রাণ নিয়েও রাজনীতি করছে। পাহাড়ের অসহায় মানুষের জন্য সরকার পর্যাপ্ত ত্রাণ সরবরাহ করছে না। অথচ এই অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর জন্যেও কাউকে এগিয়ে আসতে দিচ্ছেনা সরকারী দলের গুন্ডারা। যা কোন সভ্য সমাজে কাম্য নয় বলে বক্তারা উল্লেখ করেন তারা। নেতৃবৃন্দ বলেন, আমাদের নেতা এ অঞ্চলে ত্রাণ সামগ্রী দিতে আসতে চেয়েছেন কোন রাজনীতি করতে আসেননি। বক্তারা এ হামলার তীব্র নিন্দা জানান।

জেলা বিএনপি’র সভাপতি হাজী মো. শাহ আলমের সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এড. দীপেন দেওয়ান, সহ-উপজাতি বিষয়ক সম্পাদক কর্ণেল মণিষ দেওয়ান, জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক দীপন তালুকদার প্রমুখ। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করে বলেন, রাঙ্গুনিয়ার আওয়ামীলীগ নেতা হাসান মাহমুদের প্রত্যক্ষ মদদে তারই নির্দেশনায় জয় বাংলা শ্লোগান দিয়ে পাহাড়বাসীর জন্যে ত্রাণ নিয়ে আসা ফখরু ইসলামের গাড়ি বহরে হামলা চালানো হয়েছে। মির্জা ফখরুলকে হত্যার উদ্যোশ্যেই এই ধরনের ন্যাক্কারজনক হামলা চালানো হয়েছে। এই হামলার দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রী এড়াতে পারেন না বলেও মন্তব্য করেন রাঙামাটি জেলা বিএনপির সভাপতি মোঃ শাহআলম। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নির্দেশেই রাঙ্গুনিয়ার কুলাঙ্গার শিক্ষিত সন্ত্রাসী হাছান মাহমুদ তার গুন্ডা বাহিনী দিয়ে মির্জা ফখরুলের গাড়ি বহরে হামলা চালিয়েছে। এই হামলায় বিএনপির অন্তত এক ডজন নেতা আহত হয়েছে জানিয়ে বিএনপি নেতৃবৃন্দ বলেন, অসহায় ক্ষতিগ্রস্থ পাহাড়বাসীর পাশে দাড়ানোর জন্যে চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে ত্রাণ সামগ্রী ও নগদ অর্থ সহায়তাগুলো ছিনিয়ে নিয়েছে জয় বাংলা শ্লোগান দেওয়া সন্ত্রাসীরা।

রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার শান্তির হাটে এই হামলা হয় বলে নেতৃবৃন্দ জানিয়েছেন। তারা জানান, হামলার ঘটনায় মির্জা ফখরুলের গাড়ির কাচ ভেঙে গেছে এবং তার হাতে আঘাত পেয়েছেন। এ ছাড়া ওই ঘটনায় বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগীয় মাহবুবের রহমান শামীমও আহত হয়েছেন। মির্জা ফখরুলের গাড়িবহরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরীসহ বেশ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলন শেষে দলের নেতা-কর্মীরা শহরে বিক্ষোভ মিছিল পরবর্তী দলীয় কার্যালয় প্রাঙ্গনে সমাবেশ করে।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরো প্রধান।