মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার আবুল হোসেন আবু’র কবিতা

494

শান্তির প্রীতি
তারিখ: ১২-০৭-২০১২

স্বাধীনতা তুমি এসেছ যুগে যুগে প্রতিষ্ঠা করেছ মানবাধিকার,
পরাধীনতার জিঞ্জির ভেঙ্গে মানুষেরে দিয়েছ মৌলিক অধিকার;
এতে বিশ্বের গরীব-দুঃখী, ভূঁখা, নাঙ্গা, কাঙ্গাল পেল স্বাধীকার!
বাংলা তথা বিশ্বের মানুষ চায় বেঁচে থাকার ন্যায়সঙ্গত অধিকার,
তাইতো প্রয়োজন ‘গণতান্ত্রিক সমবাদ’ প্রবর্তনের অঙ্গীকার!
গণমানুষের আন্দোলন ‘সামাজিক অর্থনীতি’ প্রবর্তনের স্বাধীকার,
তবেইতো বুভুক্ষূ মানুষ পাবে বেঁচে থাকার অধিকার!
যারা পরের ধন করলো লুট বনে গেল রাজাধিরাজ পুঁজিপতি,
সাধারণ মানুষ কি করতে পারবে তাদের পদাবনতি?
অর্থের জোরে রাষ্ট্রের ২ ভাগ মানুষ বনে গেল মহামতি-মহারথি,
তাইতো রাষ্ট্রের ৮৫ ভাগ সাধারণ মানুষের জীবনে চরম দূর্গতি!
সকলে মিলে হটাই ঐ সকল লুটেরাকে ফিরিয়ে আনতে সুগতি,
যারা সাম্যের জয়গান গেয়ে আমাদেরকে করছে পদাবনতি!
সকলে মিলে রুখে দাঁড়াই শোষকের বিরুদ্ধে করতে মোদের পদোন্নতি,
বাংলা তথা বিশ্বে প্রতিষ্ঠা করি ‘গণতান্ত্রিক সমবাদ’ নীতি!
ধর্মীয় মূল্যবোধের ভিত্তিতে গড়ে তুলি সামাজিক রীতি,
এতে বিশ্বে প্রবর্তন করা যাবে সাম্যের ‘সামাজিক অর্থনীতি’!
গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করি ‘সমবাদ তত্ত্বে’র ‘সমবাদ নীতি’,
বাংলা তথা বিশ্বের সকল রাষ্ট্রে গড়ে তুলি ‘শান্তির প্রীতি’।

খিদমতগার
তারিখ: ১২-০৭-২০১২

প্রতিবেশীদের কারা খেতে পায়নি রাতের খাবার,
মানুষ মানুষের জন্য তাই বলে কি কখনও খোঁজ নিয়েছ তার!
হতদরিদ্র, ক্ষুধার্ত মানুষকে এড়িয়ে চলাটাকেই মনে কর ধন্য ও
তা’হলে কি তোমার গোলাঘর শূন্য?
কোথায় তোমার ধর্মীয় মূল্যবোধ, সামাজিক আচার?
চতুর্দিকে শুধু হায়ানার দল, দেখি শুধু অনাচার!
তুমিতো নিজেকে মনে কর ধর্মীয় মূল্যবোধের আপোসহীন কান্ডারী,
আসলে শুধুমাত্র নিজেকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত কর সাম্যের ভান্ডারী!
ধর্মতো ক্ষুধার্ত মানুষকে জানিয়েছে সম্পদের সুষম বন্টন তথা সাম্যের বাণী,
তাই বলে কি তুমি ক্ষুধার্ত মানুষকে অন্ন দান করেছ জানি!
সর্বহারা মানুষের নাই কোথাও ঠাঁই,
তবে কি তারা সমাজের ঠিকানায় নাই!
ধর্মীয় মূল্যবোধকে সমুন্নত রাখো শুধু স্বার্থের নিরিখে,
কখনও দাও না অন্ন ধর্মের আলোকে নিরহোরে!
তবে কি ইহলোকে তোমার ধর্ম পালন শুধু লোক দেখানো,
না কি তা পরলোকে বিধাতার করুনা পাওয়ার বুলি শেখানো!
শুধু কথায় নয় কাজে দেখাও বিধাতার ভক্তি,
অর্জন করো ধর্মীয় মূল্যবোধকে সমুন্নত রাখার শক্তি!
যদি হতে পারো ‘খিদমতগার’ করতে পারো সেবা মানুষেরে,
তবেইতো পাবে বিধাতারে।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরো প্রধান। ১৭ জুলাই ২০১৭, দৈনিক রাঙামাটি: