রাঙামাটিতে আইন-শৃঙ্খলা সভায় ডিসি: লংগদুতে উত্তেজনা সৃষ্টিকারীদেও প্রশাসনিক নজরদারিতে রাখা হচ্ছে

386

মঈন উদ্দীন বাপ্পী- ১১ জুন ২০১৭, দৈনিক রাঙামাটি:  লংগদু উপজেলায় সংঘঠিত সহিংস ঘটনায় সম্পৃক্তদের ব্যাপারে কোন প্রকার ছাড় না দেয়া হবে না। এ বিষয়ে সরকার এবং দৃঢ় অবস্থানে রয়েছে বলে উল্লেখ করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান। তিনি বলেন, এ ঘটনায় যারা পরিবেশ, পরিস্থিতি ঘোলাটে করেছে এবং উত্তেজনা সৃষ্টি করেছে; তাদের নজরদারিতে রাখা হয়েছে। যথা সময়ে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কোনো গুজবে কান না দিয়ে ভবিষ্যতে যাতে সে বিষয়ে সতর্ক করে দিয়ে এ ধরণের ঘটনার যেন আর পুনরাবৃত্তি না ঘটে সর্বপোরী পাহাড়ি বাঙালি মিলে মিশে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এলাকার শান্তি আনয়নে কাজ করার জন্য সকলের প্রতি উদাত্ত্ব আহ্বান জানিয়েছেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান। রোববার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত আইন-শৃঙ্খলা সভায় সভাপতির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি উল্লেখ করেন লংগদু সমস্যাকে সামনে এনে অনেকে রাঙামাটিতে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করার চেষ্টা করছে। বিভিন্নভাবে ভুল তথ্য পরিবেশন করে বিভ্রান্তি করার চেষ্টা করছে। লংগদু সমস্যা উত্তরণে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপকে ব্যর্থ করার অপচেষ্টা করে যাচ্ছে। শান্তিপ্রিয় রাঙামাটি শহরে বিভ্রান্তিকারীরা একটি সংকটময় পরিস্থিতি তৈরি করার চেষ্টা করছে। যাতে কেউ এ সুযোগ নিতে না পারে সেদিকে সকলকে সজাগ থাকতে হবে।

সভায় জেলার পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান জানান, পহেলা জুন নুরুল ইসলাম নয়ন হত্যাকান্ডকে কেন্দ্র করে লংগদু উপজেলায় যে সহিংস ঘটনা ঘটেছিল সেই ঘটনার মূল হোতার মধ্যে দুই জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে এবং মোটর সাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। লংগদু ঘটনাকে কেন্দ্র করে নতুন করে রাঙামাটিতে যাতে কোনরূপ বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টি না হয় সেজন্য সকলকে সজাগ দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানান তিনি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান, পৌর মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোয়াজ্জেইম হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোছা. সুমনী আক্তার, প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ সুশীল সমাজের প্রতিনিধিসহ গণমাধ্যম কর্মীরা।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরো প্রধান