রাঙামাটিতে গ্রামীণ বন সংরক্ষণ কমিটির সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

315

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

পার্বত্য এলাকায় বন সংরক্ষণ ও প্রকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার্থে সরকারকে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পরিবেশ ও গ্রামীণ সংরক্ষণ নেটওয়ার্কিং কমিটির নেতৃবৃন্দ। সোমবার (১৪ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে রাঙামাটির বনরূপা কাটাপাহাড় এলাকায় গ্রামীণ বন সংরক্ষণ কমিটির সদস্য-সদস্যাদের আলোচনা সভায় এই আহবান জানান তারা।

বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পরিবেশ ও গ্রামীন সংরক্ষণ নেটওয়াকিং কমিটির সভাপতি জ্ঞানপ্রভা চাকমার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পরিবেশ ও গ্রামীন সংরক্ষণ নেটওয়ার্কিং কমিটির সাবেক সহ সভাপতি গ্রাম প্রধান (কার্বারী) বিমল কান্তি চাকমা, কমিটির সাধারণ সম্পাদক উশংশু চাকমা, অর্থ সম্পাদক হেডম্যান মলিন্দ্র তালুকদার ও গ্রাম প্রধান (কার্বারী) গান্দী কুমার চাকমা প্রমুখ।

সভায় বক্তারা আরো বলেন, বনভূমি শুধু জীববৈচিত্র্য ও প্রাকৃতিক সম্পদের আধারই নয়, সুপেয় পানি ধরে রাখে বৃক্ষ। ফলে কোনো এলাকায় বনভূমি কমে গেলে সেখানে মরুকরণ, ভূমিধস ও প্রাকৃতিক বিপর্যয় বেড়ে যায়। আর দৈনন্দিন জীবনে আমাদের বেঁচে থাকার জন্য অতি জরুরি অক্সিজেন আসে বৃক্ষ থেকে। বৃক্ষ মানুষের জীবনের জন্য অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। আমাদের জাতীয় ঐতিহ্য, জাতীয় অর্থনীতি, আবহাওয়া এবং জলবায়ুসহ প্রাকৃতিক পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বনায়নের গুরুত্ব অপরিসীম।

তাই বর্তমান পরিস্থিতিতে জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য গ্রামীন ক্ষুদ্র যেসব বন রয়েছে সেগুলোকে যথাযথ ভাবে রক্ষানাবেক্ষণ করতে হবে। এইসব গ্রামীন বনগুলো যদি রক্ষানাবেক্ষণ করতে না পারি তাহলে জলবায়ু পরিবর্তনে দেশে মারাত্মক প্রভাব পড়বে। তাই বন উজার ও প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে রক্ষার্থে সরকারের পাশিপাশি আর্ন্তজাতিক ভাবে সমন্বয়ের মাধ্যমে এগিয়ে আসার আহবান জানান।