রাঙামাটিতে মানবাধিকার সুরক্ষায় কমিশনের ভূমিকা শীর্ষক আলোচনা

374

OLYMPUS DIGITAL CAMERA

স্টাফ রিপোর্টার, ২৫ নভেম্বর ২০১৫, দৈনিক রাঙামাটি : কে পাহাড়ী, কে বাঙালী, তা আমার কাছে বড় পরিচয় নয়। আমি মানুষ, তাই মানুষ হিসেবে মানুষকে মূল্যায়ন করি। যেখানে মানবাধিকার লঙ্ঘন হবে, সেখানে আমরা  মানবাধিকার আদায়ের পক্ষে সোচ্চার হবো। আমাদের কমিশনের সদস্য সংখ্যা কম হলেও আমাদের বিস্তৃতি সারাদেশে রয়েছে। যেখানেই মানবাধিকারের পক্ষে কথা বলা দরকার আমরা সেখানে ছুটে গিয়ে মানুষের অধিকার আদায়ের দাবি জানাই। মঙ্গলবার রাঙামাটি জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের (জামাকন) আয়োজনে অনুষ্ঠিত ‘মানবাধিকার সুরক্ষায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের ভূমিকা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্য নিরূপা দেওয়ান প্রধান অতিথির বক্তব্য এসব কথা বলেন।

আলোচনার শুরুতে প্রজেক্টরের মাধ্যমে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কার্যক্রম তথ্য চিত্র তুলে ধরেন রাঙামাটি জেলার ইউএনডিপির এক্সপার্ট জাহিদ হোসেন। এসময়  মানবাধিকার কর্মী, এনজিও কর্মী এবং সংবাদ মাধ্যমের কর্মীরা মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. মোস্তফা জামানের সভাপতিত্বে এবং জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কমিনেকেশন এনালিস্ট মুহাম্মদ রবিউল আলমের সঞ্চলনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ও সরকারের অতিরিক্ত সচিব মো. আমজাদ হোসেন।

সচিব বলেন, আমরা কোন এনজিও সংস্থা নই, আমরা রাষ্ট্রের একটি সংস্থা। অনেক সময় রাষ্ট্র এত বেশি ক্ষমতাশালী হয়ে উঠে যার ফলে মানাবাধিকার লঙ্ঘনের পথে চলে যায়। আমরা রাষ্ট্রকে মনে করিয়ে দিই যে, এ জায়গায় মানাবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে। আমরা রাষ্ট্রের সংস্থা হলেও রাষ্ট্রের নির্দেশে আমাদের সংস্থা চলে না। আমরা আমাদের সংস্থার নিয়ম অনুযায়ী চলি। তিনি বলেন, নারীরা পুরুষের কাছে জেন্ডার বৈসম্যর স্বীকার হয়। কিন্তু নারীও একজন মানুষ। তার অধিকার রয়েছে চাওয়া-পাওয়ার। নারী হিসেবে গণ্য না করে মানুষ হিসেবে তার ইচ্ছার অধিকারকে মূল্যায়ন করতে শিখুন। তিনি আক্ষেপের সাথে বলেন, এতদিন হিজড়ারাদের পরিচিতি ছিলনা। যা আমাকে অনেকদিন পীড়া দিত। কিন্তু বর্তমান সরকার হিজড়াদের একটি লিঙ্গ হিসেবে মূল্যায়ন করায় আমি অত্যন্ত আনন্দিত।

তিনি আরো বলেন, আর নয় বৈসম্য, এবার গাইব মাানবাধিকারের জয়গান। সকলের প্রতি উদাত্ত আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের কমিশনের লোক সংখ্যা কম থাকলেও আপনারা আমাদের শক্তি। আপনাদের সমস্যার কথা আমাদের জানান। আমরা জানি কারা অধিকার বঞ্চিত হয়। অতএব আর নয় ভয়, এবার মানবাধিকার করবো জয়। তিনি উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আপনারা যারা বিভিন্ন সংস্থার সাথে জড়িত রয়েছেন বিশেষ করে সংবাদকর্মী বন্ধুদের প্রতি আহবান, আপনারা আপনাদের লেখনির মাধ্যমে মানবাধিকারের কথা তুলে ধরুন।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান