রাঙামাটিতে শীর্ষ সন্ত্রাসী ইউপিডিএফ সংগঠক রণজিত তঞ্চঙ্গ্যা আটক: সাজেকে আটক দুই

347

স্টাফরিপোর্ট- ১৪ জুলাই ২০১৮, দৈনিক রাঙামাটি:  রাঙামাটিতে অস্ত্র-গুলিসহ কাউখালীর কথিত রাজনৈতিক নেতা ও অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের দাদা হিসেবে পরিচিত, ইউপিডিএফ সংগঠক শীর্ষ সন্ত্রাসী রণজিত তঞ্চঙ্গ্যা প্রকাশ রাখাল (৩৮) নামের একজনকে আটক করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। গত শুক্রবার (১৩ জুলাই) সন্ধ্যায় সদর উপজেলার সাপছড়ি ইউনিয়নের কুতুকছড়ি এলাকার বোধিপুর গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে একটি দেশীয় এলজি, ৩ রাউন্ড গুলি ও নগদ ২১ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়।

জানা গেছে, গ্রেফতার হওয়া রণজিত তঞ্চঙ্গ্যা ২০০৭ সাল থেকে ২০১৮ সালের মে পর্যন্ত ইউপিডিএফ কাউখালী ইউনিটের দায়িত্বে ছিলেন। লোক মুখে জানা গেছে তিনি প্রায় ১০ কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক এই ইউপিডিএফ শীর্ষ সন্ত্রাসী।

তার বাড়ি রাঙামাটি জেলার রাজস্থলী উপজেলা ঘিলারমুখ। পিতা মৃত- বৌদ্ধধর্মীয় একজন ভান্তে। রাখাল তঞ্চঙ্গ্যার পরিবারে স্ত্রীসহ ২ সন্তান রয়েছে। বড় ছেলে প্রবিন তঞ্চঙ্গ্যা, মেয়ে পূর্ণা তঞ্চঙ্গ্যা। পুর্বে শান্তিচুক্তি পক্ষের সংগঠন পার্বত্য চট্টগ্রাম জন সংহতি সমিতি (জেএসএস)-এর সাথে জড়িত ছিলো। ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর পার্বত্য শান্তিচুক্তির পরে চুক্তি বিরোধী সংগঠন ইউপিডিএফ গ্রুপে যোগ দেয়।

তার সাথে কাউখালী উপজেলার কথিত রাজনৈতিক নেতা ও অসাধু ব্যবসায়ীদের গলায় গলায় ভাব ছিলো। প্রশাসন যতবারই তাকে আটক করার জন্য অভিযান চালিয়েছে, ততবারই কথিত রাজনৈতিক নেতা, অসাধু স্বার্থবাজ ব্যবসায়ী রাখাল তঞ্চঙ্গ্যাকে সহযোগিতাছে দীর্ঘ ১১ বছর ধরে। রাখালের বিরুদ্ধে একাধিক হত্যা, অপহরণ, চাঁদাবাজির মামলা রয়েছে বলে একাধিক সূত্রে জানা যায়। এছাড়া নারী সংঘঠিত একাধিক অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

নিরাপত্তা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাঙামাটি সদর জোন ২০ বীরের মেজর আশরাফের নেতৃত্বে নিরাপত্তা বাহিনীর একটি দল অভিযান চালিয়ে অস্ত্র-গুলি, চাঁদার রশিদ ও নগদ টাকাসহ রনজিত তঞ্চঙ্গা ওরফে রাখালকে আটক করা হয়।

নিরাপত্তা বাহিনী ওই এলাকায় এখনও অভিযান অব্যাহত রেখেছে বলে পুলিশের এ কর্মকর্তা জানান।

সাজেকে দুই ইউপিডিএফ সদস্য আটক


রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেক ইউনিয়ন থেকে দুই ইউপিডিএফ সদস্যকে আটক করা হয়েছে বলে নিরাপত্তা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে। শুক্রবার (১৩জুলাই) সন্ধ্যায় তাদের আটক করা হয়। আটককৃতরা হলো- ওই উপজেলার মাসালং এলাকার লক্ষি মোহন চাকমার ছেলে সুদাচন চাকমা (২২) এবং একই এলাকার সমিরণ চাকমার ছেলে রিনায় চাকমা (১৮)।
নিরাপত্তা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে, আটক ওই দুই যুবক পর্যটন এলাকা সাজেকের কোন দোকানদার যাতে বাঘাইহাট এলাকা থেকে বাজার না করে তার প্রেক্ষিতে সাজেক এলাকায় লিফলেট বিতরণ করার সময় নিরাপত্তা বাহিনী তাদের আটক করে স্থানীয় থানায় হস্তান্তর করে।

সাজেক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আনোয়ার জানান, আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরো প্রধান। সূত্র- অন্যমিডিয়া