‘রাঙামাটিতে হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে কোন হিংসা-হানাহানি নেই’

198

॥ সংবাদ বিজ্ঞপ্তি ॥
“রাঙামাটিতে হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে কোন হিংসা, হানাহানি নেই” উল্লেখ করে বিবৃতি দিয়েছে পূজা উদযাপন পরিষদ। বুধবার (২৬ আগস্ট) বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা শাখার সভাপতি অমর কুমার দে স্বাক্ষরিত এই বিবৃতি প্রদান করা হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয় যে, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ পূনর্গঠন করার বিষয়টিকে সামনে রেখে সম্প্রতি একটি গুজব ছড়ানো হচ্ছে যে, হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে দলাদলি, হিংসা, হানাহানি চলছে। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা গুজব রটানো হচ্ছে।

বাংলাদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের অনেক সংগঠন আছে। সারা দেশে এই পর্যন্ত বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃত্বে সবকিছু পরিচালিত হয়ে আসছে। নেতৃত্ব বেশী থাকলে সংগঠনও বেশী থাকবে। তাই বলে এটাকে দলাদলি যাবে না। কিছু মতবিরোধ, রাগারাগি বা মান-অভিমান থাকতেই পারে।

বড় বড় রাজনৈতিক দলে হিংসা, বিদ্বেষ, দলাদলি, মারামারি, খুনাখুনি হয়ে থাকে, আমাদের রাঙামাটিতে হিন্দু সম্প্রদায়ে কোন মারামারি, খুনাখুনি এখনও পর্যন্ত হয়নি। কয়েক বছর পূর্বে আসামবস্তি শিব মন্দিরের শ্মশানের জায়গা নিয়ে সমস্যা হয়েছিল।

সেই সমস্যা আমরা সকল হিন্দু সম্প্রদায় একত্রিত হয়ে মোকাবেলা করেছি এবং দুই মাস পূর্বে ফিসারী বাঁধে মগদ্দেশ্বরী সেবা খোলা মন্দির ভাংচুর করলে হিন্দুরা সবাই একত্রে প্রতিবাদ করেছে। সুতরাং হিন্দু সম্প্রদায়ে কোন হিংসা, হানাহানি নেই। একটি মহল গুজব রটিয়ে হিন্দুদের স্বার্থের ব্যাঘাত সৃষ্টি করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।

পদের জন্য সবার আকাঙ্খা থাকে, তাই বলে এটাকে দলাদলি বলে হিন্দু সম্প্রদায়কে বঞ্চিত করা হলে কেউ সহজে মেনে নেবে না। আওয়ামীলীগ জন্মলগ্ন থেকে হিন্দুরা সমর্থন দিয়ে এসেছে। সমর্থন দেওয়ার কারণে হিন্দুদের অনেক নির্যাতন, নিপীড়ন ও ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। আমরা আওয়ামীলীগের প্রতি সব সময় শ্রদ্ধাশীল। বিধায়, দলাদলির মিথ্যা গুজব রটিয়ে আমাদের বঞ্চিত করা হলে তা হবে অত্যন্ত দুঃখজনক।