রাঙামাটির বাজারে চালের দাম বৃদ্ধি খোলা বাজারে চাল বিক্রির দাবী

286

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

রাঙ্গামাটির বাজারে হঠাৎ করেই চাউলের দাম অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। শ্রমিক শ্রেণির মানুষসহ সাধারন ক্রেতারা এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। তারা খন্ডকালীন সময়ের জন্য হলেও খোলা বাজারে আবারও ন্যায্য মূলে চাউল বিক্রির দবি জানিয়েছেন।

গত কয়েক দিন আগে রাঙামাটি শহরে একাধিক চাউলের বাজার ঘুরে জানাগেছে, গত ৪-৫ মাসে ৫০ কেজি ওজনের চাউলের বস্তা প্রকার ভেদে পর্যায় ক্রমে ৫০০/- টাকা হতে ৮০০-১০০০/- পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়ে চাউল বিক্রি হচ্ছে।

সাধারন ক্রেতা ও বিক্রেতা হতে সংগৃহিত তথ্যে মতে বেতি চাউল প্রকার ভেদে ১৭৫০/- টাকা হতে ২০০০/- টাকা বা তার চেয়েও কিছুটা বেশি মূল্যে বিক্রি হচ্ছে। মিনিকেট ২০০০/- টাকা হতে বৃদ্ধি পেয়ে ২৪০০/- টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। ইরি মোটা চাউল (নতুন) ১৪০০/- টাকা হতে বৃদ্ধি পেয়ে ১৭০০/- টাকা বিক্রি হচ্ছে।

পুরাতন ইরি মোটা চাউল ১৫০০/- টাকা হতে বৃদ্ধি পেতে পেতে ২৩০০/- টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে এমন তথ্য পাওয়া গেছে। পাইজাম চাউল ১৮০০/-, ২২৫০/- টাকা হতে বৃদ্ধি পেয়ে প্রকার ভেদে ২২৫০/-, ২৪০০/- এবং ২৪৫০/- টাকা বস্তা বিক্রি হচ্ছে। পারি সিদ্ধ ১৭৫০/-, ২০০০/- ও ২০৫০/- টাকা থেকে বৃদ্ধি পেয়ে কোথাও কোথাও ২১০০/-, ২১৫০/- এবং ২২০০/- টাকা মূল্যে বিক্রি হচেছ।

এছাড়া লিচু মিনিকেট নামে যে চাউল বস্তা প্রতি ১৭৫০/- টাকায় বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমান তা ২০০০/- টাকায় বিক্রি হচ্ছে। চিকন সিদ্ধ (বাশমোতি) ২২০০/- টাকা হতে বৃদ্ধি হয়ে ২৪৫০/- বিক্রি হচেছ।

ইরি মোটা সিদ্ধ ৯০০/- টাকা থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ১৭০০/- বিক্রি হচ্ছে। এমনঅবস্থা সম্পর্কে প্রশ্ন করলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েক জন চাউল সওদাগর দাম বৃদ্ধির কারন হিসেবে জানালেন আড়তদার বেশি মূল্যে সরবারাহ করছে কারনে আমাদেরকেও বৃদ্ধি মূল্যে বিক্রি করতে হচ্ছে। অধিক মূল্যে ক্রয় হতে রক্ষাপেতে হলে খোলাবাজারে ন্যায্য মূল্যে চাউল বিক্রির ব্যবস্থ্যা করা একান্ত প্রয়োজন।