রাঙ্গামাটিতে নারী হেডম্যান সম্মেলনে সন্তু লারমা : চুক্তির ১৮বছর পেরিয়ে গেলেও পাহাড়ে সেনা শাসন অব্যাহত রয়েছে

475
ছবি- সংগ্রহিত
ছবি- সংগ্রহিত

স্টাফ রিপোর্টার, ২৪ নভেম্বর ২০১৫, দৈনিক রাঙামাটি : আজ মঙ্গলবার সকালে সিএইচটি হেডম্যান নেটওর্য়াক এর উদ্যোগে আয়োজিত প্রথম নারী হেডম্যান ও কার্বারীদের নিয়ে রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির ইনষ্টিটিউট মিলনায়তনে দুই দিনব্যাপী সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান ও জনসংহতি সমিতির সভাপতি জ্যোতিরিন্দ্র  বোধিপ্রিয় লারমা ওরফে সন্তু  লারমা বলেছেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির ১৮বছর পেরিয়ে গেলেও পাহাড়ে এখনো সেনা শাসন অব্যাহত রয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে বিরাজমান পরিস্থিতির কারনে এখনো এ অঞ্চলে শোষণ ও নিপীড়ন অব্যাহ আছে। পার্বত্য চুক্তির পরবর্তী প্রণিত আইনসমূহকে অকার্যকর রেখে সরকার ঔপনিবেশিক কায়দায় পার্বত্য অঞ্চলকে শাসন করে চলেছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান সন্তু লারমা।

পার্বত্য চট্টগ্রাম সিএইচটি হেডম্যান নেটওর্য়াক এর সহ-সভাপতি থোয়াই অং মারমার সঞ্চালনায় ও পার্বত্য চট্টগ্রাম সিএইচটি হেডম্যান নেটওর্য়াক এর সভাপতি খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরি চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে উদ্বোধক হিসেবে বক্তব্য রাখেন চাকমা সার্কেল চীফ রাজা ব্যরিষ্টার দেবাশীষ রায়। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ বৃষ কেতৃ চাকমা, বরকল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনি চাকমা, এল এল আর ডি উপ পরিচালক রওশন জাহান মনি, ইউএনডিপি সিএইচটিডিএফের উপ পরিচালক প্রসেনজিৎ চাকমা প্রমূখ।

পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের দাবীতে পাহাড়ে অসহযোগ আন্দোলন অব্যাহত আছে বলে জানিয়ে সম্মেলনে সন্তু লারমা আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনা শাসনের পাশাপাশি বিট্রিশ আমলের আইন চালু রাখায় পার্বত্য অঞ্চলের প্রশাসনিক ব্যবস্থায় জটিল অবস্থা বিরাজ করছে। তিনি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে নারী হেডম্যান ও কার্বারীদের অধিকার রক্ষার পাশাপাশি এ অঞ্চলে চাকমা সার্কেল চীফের উদ্যোগ অত্যন্ত প্রশংসনীয় হলে ও বোমাং ও মং সার্কেলের ভূমিকা হতাশাব্যঞ্জক ও প্রশ্নবিদ্ধ। পার্বত্য চট্টগ্রামের আত্মনিয়ন্ত্রনাধিকার আন্দোলনে শামিল হওয়ার পাশাপাশি এ অঞ্চলের মানুষের অধিকার রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ নিতে সকলকে আহবান জানান। তিনি বলেন, বর্তমান সমাজ ব্যবস্থায় নারীদের আঁতুড় ঘরে রাখা হয়েছে, পুরুষ শাসিত সমাজ ব্যবস্থায় নারীদের অধিকার অনেকটাই খর্ব করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে নারীদের অধিকার রক্ষায় পুরুষদের ও এগিয়ে আসতে আহবান জানানো হয়।

সম্মেলনে পার্বত্য চট্টগ্রামের তিনটি সার্কেলের ১২জন হেডম্যান ১৪৭ জন কার্বারীসহ ২শতাধিক প্রতিনিধি অংশগ্রহন করেন।

সম্পাদনা- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান।