রাবিপ্রবিতে বিশ্ব মৎস্য দিবস ঘিরে র‍্যালী ও আলোচনা সভা

33

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্ব মৎস্য দিবস পালন করা হয়েছে। সোমবার (২১ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ এন্ড মেরিন রিসোর্সেস টেকনোলজি বিভাগের আয়োজনে দিবসটি ঘিরে সকালে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীটি বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের দীপংকর তালুকদার ভবনে এসে শেষ হয়।

পরে অনুষ্ঠিত হয় সেমিনার। সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো ভাইস প্রফেসর ড. কাঞ্চন চাকমা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সেমিনারে বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদ নিয়ে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শহীদুল আলম (শাহীন) এবং আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ওশানোগ্রাফি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম সরকার। এছাড়া রাবিপ্রবি সিএসই বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহকারী অধ্যাপক ধীমান শর্মা এবং ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের চেয়ারম্যান ( ইনচার্জ) খোকনেশ্বর ত্রিপুরা সেমিনারে বক্তব্য রাখেন। সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) জনাব অঞ্জন কুমার চাকমা।

বক্তারা বলেন, মানুষের অসচেতনতার কারণে দিন দিন দেশে মৎস্য সম্পদ বিলুপ্ত হচ্ছে। আগে কাপ্তাই লেকে অনেক বড় বড় মাছ পাওয়া যেতো কিন্তু এখন জেলেরা বেশি লাভের আশায় বেশি মাছ আহরণ এবং মা মাছ শিকারের ফলে মাছের পরিমাণ দিন দিন কমে যাচ্ছে। এখনি সচেতন না হলে অদূর ভবিষ্যতে লেকে আর মাছ থাকবেনা। মানুষ মাছ খাওয়ার অভাবে প্রোটিনের ঘাটতিতে পড়বে। সেজন্য বক্তারা চাহিদার বেশি মাছ না ধরার জন্য সকলকে আহবান জানান।

প্রো ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাঞ্চন চাকমা বলেন, “কাপ্তাই লেকে মৎস্য সম্পদ নিয়ে ফিশারিজ এন্ড মেরিন রিসোর্সেস টেকনোলজি বিভাগের শিক্ষার্থীদের কাজ করতে হবে।“ তিনি লেকে মাছের উৎপাদন বাড়িয়ে দেশের মানুষের প্রাণীজ প্রোটিনের চাহিদা পূরণে কাজ করার জন্য শিক্ষার্থীদের পরামর্শ দেন। তিনি আরও বলেন, “কাপ্তাই লেক দিন দিন অনেক দুষিত হচ্ছে।” তিনি এ দুষিত লেককে কিভাবে রক্ষা করা যায় সেজন্য সবাইকে একসাথে কাজ করার আহবান জানান।

অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন রাবিপ্রবি সিএসই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ঋষিতা চাকমা। ফিশারিজ এন্ড মেরিন রিসোর্সেস টেকনোলজি বিভাগের শিক্ষার্থীসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীগণ উপস্থিত ছিলেন।