লংগদুতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের সংবাদ সম্মেলন

329

॥ লংগদু প্রতিনিধি ॥

লংগদুতে মৎস্য সপ্তাহ উদযাপন উপলক্ষে উপজেলা মৎস্য বিভাগের উদ্যোগে এক সংবাদ সন্মেলনের আয়োজন করা হয়। মঙ্গলবার, উপজেলা মৎস্যা কর্মকর্তার কার্যালয়ে এসংবাদ সন্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে সভাপতিত্ব ও মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ রাকিব হাসান।

এসময় সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা নব আলো চাকমা, ক্ষেত্র সহযোগী মোঃ নাছির উদ্দিন, লংগদু প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক মুছা, দৈনিক পার্বত্য চট্টগ্রাম, লংগদু প্রতিনিধি আরমান খান সহ অন্যান্য সাংবাদিকগণ সহ লংগদু মৎস্যজীবি সমিতির সভাপতি ইমান আলী উপস্থিত ছিলেন।

মূল বক্তব্যে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ রাকিব হাসান বলেন, জনগণেরর শতকরা ৬০ভাগ প্রাণিজ  আমিষ চাহিদা পূরণ সহ গ্রামীণ জনপদে কর্মসংস্থান সৃষ্ঠি এবং বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে এদেশের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।

বাংলাদেশের অভ্যন্তরীন জলাশয়ে মাছ আহরণে বিশ্বে ৪র্থ স্থান অর্জন করেছে। ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে দেশে মৎস্য উদপাদন বৃদ্ধি পেয়ে ৩৮.৮৪ লক্ষ মে.টনে দাড়িয়েছে।

জিডিপির ৩.৬৫ শতাংশ আসে এই মৎস্য খাত হতেই। কৃষিজ জিডিপির একচতুর্থাংশ আসে মৎস্য খাত থেকে। বিগত ১০ বছরে এখাতে জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে ৬.৩১ শতাংশ এবং বিগত ৭বছরে এখতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে অতিরিক্ত কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে ৬ লক্ষাধিক গ্রামীণ জনগনের, উপার্জন বেড়েছে ৩০ শতাংশ।

এছাড়া মায়ানমার ও ভারতের সমুদ্র সীমা বিরোধ নিষ্পত্তির মাধ্যমে বর্তমান সরকার গভীর সমুদ্রে ১লক্ষ ৮০ হাজার ৮১৩ বর্গ কিলোমিটার এলাকার মালিকানা এদেশের জনগনের হাতে তুলে দিয়েছে।

বর্তমান সরকার মৎস্যবান্ধব সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় সকলের অংশগ্রহনে অভ্যন্তরীন জলাশয়ে মৎস্যচাষে ও ব্যবস্থাপনা একটি সামাজিক আন্দোলনে পরিনত হয়েছে।

‘‘মাছ চাষে গড়বো দেশ বদলে দেব বাংলাদেশ’’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে সকল অংশীজনকে সম্পৃক্ত করে এবছরের জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উদযাপিত হতে যাচ্ছে।  অপরদিকে আমাদের খুশির খবর যে, আমাদের লংগদু উপজেলার মাইনীমুখ এলাকার ত্রি স্টার, একটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান এর সদস্য মোঃ আব্দুর রশীদ একজন সফল ও শ্রেষ্ট রুই জাতীয় মৎস্য চাষী ও উদপাক হিসেবে ২০১৭ সালের মৎস্য সপ্তাহে স্বর্ণপদকে মনোনীত হয়েছেন।

তিনি বুধবার প্রধান মন্ত্রীর নিকট থেকে স্বর্নপদক গ্রহন করবেন বলে বক্তব্যে তিনি জানান।