লংগদুতে শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীর শ্লীলতাহানীর অভিযোগ

455

Rep_newsnextbd

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥ লংগদু উপজেলার ইসলামাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুভাস চন্দ্র ঘটকের বিরুদ্ধে একই বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছে যৌন হয়রানীর শিকার হওয়ার মতো ন্যাক্কারজনক এই ঘটনার পর হতে আতঙ্কিত হয়ে বিদ্যালয়ে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয় কোমলমতি অনেক শিক্ষার্থী। এদিকে ঘটনাটিকে ধামাচাপা দিতে উঠেপড়ে লেগেছে প্রভাবশালী একটি মহল। ঘটনার শিকার স্কুল ছাত্রীর অভিভাবক এলাকার জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয়দের মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, বুধবার উল্লেখিত বিদ্যালয়ে পাঠদানের সময় ৫ম শ্রেণির ছাত্রী (১১) কে কাছে ডেকে এনে তার শরীরের স্পর্শকাতর অঙ্গে হাত বুলাতে থাকে প্রধান শিক্ষক সুভাস চন্দ্র ঘটক। এসময় বাধা প্রদান করলে ছাত্রীটিকে ১০০ টাকার একটি নোট দিয়ে লোভ দেখানোর চেষ্টা করে। ঘটনাটি ক্লাসের অন্যান্য ছাত্রদের চোখে পড়লে তারা হাসাহাসি শুরু করে দেয়। এসময় অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক হাসাহাসির অপরাধে কয়েকজন ছাত্রকে লাঠি দিয়ে বেদম মারপিট করে।

মার খাওয়া ছাত্রদের মধ্যে একজন মুঠোফোনে প্রতিবেদককে জানায়, স্যার আমাদেরকে একটি লিখা লিখতে বলে পেছনের টেবিলের দিকে যায়। সেখানে বসা আমাদের সহপাঠি শিক্ষার্থী (১১) ও অপর একজনের শরীরের বিভিন্ন স্থানে হাত বুলাতে থাকে। বিষয়টি আমরা কয়েকজন দেখে ফেলে হেসে দিই। পরে স্যার দুইটি বেত দিয়ে আমাদেরকে বেদড়কভাবে পেটায় এবং বলতে থাকে লিখতে বলেছি, সেটি নাকরে পেছনের দিকে তাকিয়েছো কেন? এই কথা বলতে বলতে আমাদেরকে বেশ কয়েকটি বাড়ি দেন প্রধান শিক্ষক।

এদিকে স্কুল ছুটির পর ছাত্ররা স্থানীয় অভিভাবকদের কাছে ঘটনাটি প্রকাশ করে দেয়। ফলে বৃহঃস্পতিবার ঐ শিক্ষক বিদ্যালয়ে গেলে স্থানীয় লোকজন গিয়ে তার কাছে বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি অকপটে স্বীকার করেন এবং এই ব্যাপারটি নিয়ে বাড়াবাড়ি না করার অনুরোধ জানান প্রধান শিক্ষক সুভাস। স্থানীয় যুবকদের কাছে তিনি ক্ষমা চেয়ে প্রয়োজনে বিদ্যালয় ছেড়ে অন্যত্র বদলি হয়ে চলে যাবেন বলেও জানান। এসময় যুবকরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে তাকে মারধরের চেষ্টা চালায়। এদিকে স্থানীয় কয়েকজন নেতা ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষককে উদ্ধার করে নিজেদের সাথে নিয়ে চলে যান তারা। বিষয়টি সম্পর্কে জানতে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক সুভাস চন্দ্র ঘটকের মুঠোফোনে বারংবার কল দিলেও তার মুঠোফোনের নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া গেছে।