শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হলো জেএসএস’র ডাকা হরতাল, অবরোধ

309

p....3

আলমগীর মানিক- স্টাফ রিপোর্টার, ৩ জানুয়ারি ২০১৬, দৈনিক রাঙামাটি : পৌরসভা নির্বাচনে কারচুপির প্রতিবাদ ও অসহযোগ আন্দোলনের অংশ হিসেবে রোববার রাঙামাটি জেলায় পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি-জেএসএস এর ডাকে সকাল-সন্ধ্যা সড়ক ও নৌ-পথ অবরোধ কর্মসূচি কোনো প্রকার বড় ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হয়েছে। সকালে শহরের বেশ কিছু এলাকা ও বিভিন্ন উপজেলার গুরুত্বপূর্র্ণ স্থানগুলোতে অবস্থান নিয়ে অবরোধের সমর্থনে পিকেটিং শুরু করে জেএসএস নেতাকর্মীরা। রাঙামাটি শহরের তবলছড়ি, বনরূপা, কোর্ট বির্ল্ডিং, রাজবাড়ি, কল্যাণপুর, কলেজ গেইট, ভেদভেদী, শিমুলতলী, ঘাগড়া ও মগাছড়ি এলাকায় পিকেটিংয়ে অংশ নেয় অবরোধকারিরা। এদিকে অবরোধকে কেন্দ্র করে যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা নিয়ন্ত্রণে শহরের বিভিন্ন স্থানে মোতায়েন করা হয় বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য। এছাড়াও শহরে বাড়ানো হয় বিজিবি’র টহল।

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে অবরোধ সমর্থকদের উপস্থিতি। বিপুল সংখ্যক অবরোধসমর্থকদের উপস্থিতিতে সকাল-সন্ধ্যার অবরোধ কর্মসূচী অনেকটা হরতালে রূপ নেয়। সকাল-সন্ধ্যার চলমান অবরোধে অচল হয়ে পড়েছিলো পর্যটন নগরী রাঙামাটি। সকাল থেকেই বন্ধ ছিলো সব ধরনের যান চলাচল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো। স্থবির হয়ে পড়েছিলো রাঙামাটিবাসীর জনজীবন। বন্ধ রয়েছে জেলা সদর তো বটেই, প্রত্যন্ত এলাকার দোকান পাট, বাজার ঘাট ও ব্যবসা বাণিজ্য।

সতর্ক প্রহরায় ছিলো পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি ও সেনাবাহিনী। তবে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত জেলার কোথাও ছোটো-খাটো দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া বড় ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। দুপুরে দিকে রাঙামাটি আসার সময় মগাছড়ি এলাকায় অবরোধকারিরা দুইটি গাড়িতে হামলা চালিয়ে গ্লাস ভেঙ্গে দেয়। এছাড়াও একটি সিএনজি অটোরিক্সাও ভেঙ্গে দেওয়ার কথা জানাগেছে। অপরদিকে অবরোধের সমর্থনে সুবলংয়ের প্রবেশমুখে অবস্থান নিয়ে অন্তত দশটি যাত্রীবাহি বোটকে শহরের দিকে ফেরৎ পাঠানোর পাশাপাশি আরো ৯টি বোটকে সন্ধ্যা পর্যন্ত আটকে রেখে অবরোধের সময় পার হওয়ার পর সেগুলোকে গন্তব্যে যেতে দেয় পিকেটাররা। অবরোধের কারনে সকাল থেকে রাঙামাটির সকল সড়ক ও নৌ পথে অভ্যন্তরীন ও দুর পাল্লার কোন যান চলাচল করেনি। শহরের অভ্যন্তরে চলা একমাত্র মাধ্যম সিএনজি অটোরিক্সাও চলেনি। শহরে বিভিন্ন পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। অবরোধ শেষে বনরূপা পেট্রোল পাম্প চত্বরে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করে জন সংহতি সমিতির নেতা কর্মীরা।

এদিকে, অকুন্ঠ সমর্থন দিয়ে স্বতঃস্ফুর্তভাবে অবরোধ কর্মসূচি পালন করায় রাঙামাটিবাসীসহ পুলিশ বাহিনী ও প্রশাসনযন্ত্রকে অভিনন্দন জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম জন সংহতি সমিতি জেএসএস। রোববার সন্ধ্যায় সংগঠনটির পক্ষ থেকে পাঠানো এক প্রেস বার্তায় জানানো হয়, বিগত ৩০ ডিসেম্বর ২০১৫ রাঙামাটি পৌরসভা নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলীয় প্রার্থীর কর্মী ও সমর্থকদের কর্তৃক ব্যাপক কারচুপি, চরম অনিয়ম ও প্রশাসনের পক্ষপাতিত্বমূলক ভূমিকার প্রতিবাদে এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের দাবিতে জুম্ম জনগণের চলমান অসহযোগ আন্দোলনের অংশ হিসেবে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির আহুত রাঙামাটি পার্বত্য জেলায় আজকের সকাল-সন্ধ্যা সড়ক ও জলপথ অবরোধ কর্মসূচি সুষ্ঠু ও সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ায় পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি রাঙামাটি পার্বত্য জেলার সড়ক ও জলপথের সকল প্রকার যানবাহনের মালিক ও চালক সমিতি, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, সংশ্লিষ্ট প্রশাসন, সাংবাদিকসহ সর্বস্তরের পাহাড়ি-বাঙালি জনগণকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছে।

বরকল উপজেলার জগন্নাথছড়া বিজিবি ক্যাম্পের সুবেদার আকরাম এবং কাপ্তাই উপজেলার রাইখালীতে সামান্য বসচা ছাড়া সকাল-সন্ধ্যা সড়ক ও জলপথ অবরোধ কর্মসূচি সুষ্ঠু সম্পন্ন হয়েছে। কর্মসূচি চলাকালে জেলার সড়ক ও জলপথের সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে এবং কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

পোস্ট- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান