সরকার ভাল থাকলে আমরা ভাল থাকবোঃ ঊষাতন

564

vat-pic-28-11-2016-1

মোঃ হান্নান, মঈন উদ্দীন বাপ্পী

রাঙামাটি আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার বলেছেন, ‘সরকার শক্তিশালী হলে আমরা শক্তিশালী হবো, সরকার ভাল থাকলে আমরা ভাল থাকবো’। আর এজন্য প্রত্যেক নাগরিকের উচিত দেশের উন্নয়নে যথাযথভাবে কর আদায় করা।

তিনি বলেন, দেশের সচেতন নাগরিক হিসাবে সকলের উচিৎ রাষ্ট্রের উন্নয়নে ভ্যাট প্রদান করা। ভ্যাটের পাশাপাশি দেশের উন্নয়নের চাকা সচল করতে হলে স্বাবলম্বী প্রতিটি ব্যক্তিকে অবশ্যই কর দিতে হবে। উন্নত বিশ্বের দেশগুলোর জনগণ নিয়মিত কর প্রদান করছে বলেই তারা আজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। কর দেয়ার ক্ষেত্রে যে উদাসীনতা আমাদের মাঝে রয়েছে তা দুর করার দায়িত্ব কর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

তিনি বলেন, জনগণ কর দিতে তখনই উৎসাহিত বোধ করবে যখন তার নাগরিক সুযোগ সুবিধাগুলো পেতে থাকবে।

এমপি ঊষাতন আরও বলেন, নতুন আইন সৃষ্টি হলে সাধারণ মানুষের মধ্যে এক ধরণের ভয়ভীতি সৃষ্টি হয়। তাই জনগণের মাঝে সৃষ্টি হওয়া এই ভয় দূর করার জন্য মূল উদ্যোগ নিতে হবে কর্তৃপক্ষকে।

তিনি আইন সম্পর্কে সাধারণ মানুষের ভয়-ভীতি দূর করার জন্য ব্যাপক প্রচার-প্রচারণাসহ তাদের উদ্বুদ্ধ করার উদ্যোগ নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

রাঙামাটিতে আয়োজিত করদাতা উদ্ধুদ্ধকরণ বিষয়ক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঊষাতন তালুকদার এমপি এসব কথা বলেন। সোমবার পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের মাইনী মিলনায়তনে এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক মূল্য আইন ২০১২এর আওতায় জনমত সৃৃষ্টি করা, অবহিত ও উদ্বুদ্ধকরণের লক্ষ্যে রাঙামাটি জেলার কাস্টমস, এক্সারসাইজ ও ভ্যাট বিভাগ এই সেমিনারের আয়োজন করে।

সেমিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলাপ্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান, পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান এবং রাঙামাটি চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র সভাপতি হাজি বেলায়েত হোসেন ভূঁইয়া। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম কাস্টমস এর কমিশনার (এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট) মোঃ গোলাম কিবরিয়া। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত কমিশনার সুরেশ চন্দ্র বিশ্বাস। সঞ্চালনা করেন চট্টগ্রাম কাস্টম এর সহকারী কমিশনার ও বিভাগীয় কর্মকর্তা (রাঙামাটি বিভাগ) আসমা আক্তার।

সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জেলাপ্রশাসক মানজারুল মান্নান বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিতে হলে কর দিয়ে সরকারকে সহযোগিতা করে নিজেরা উন্নয়নে ভাগিদার হউন। আগের তুলনায় কর প্রদান এখন অনেকটা সহজ করা হয়েছে। এখন প্রয়োজন কর দেয়া ও নেয়ার মাঝে সৎ থাকা। তাহলেই সকল ভীতি, সংশয় দুর হয়ে যাবে। এতে করে লাভবান হবে দেশ ও দেশের জনগণ। তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের কর্মতৎপরতায় আমরা মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হচ্ছি।

পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান, সরকারের উন্নয়নমূখি সকল উদ্যোগকে আমাদের সকলেরই উচিত সহযোগিতা করা। যদি আমরা কর প্রদান না করি তাহলে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বাধাগ্রস্থ হবে। তাই সরকারের সামগ্রিক উন্নয়নের মুল চালিকাশক্তি আমরাই। আমাদের অর্থ দিয়ে দেশের উন্নয়ন হবে, এর থেকে গর্বের বিষয় আর কি হতে পারে।
চেম্বার সভাপতি বেলায়েত হোসেন বেলাল বলেন, কর প্রদানে জনগণের মাঝে এখন ভীতি কাজ করছে, রয়েছে আইন সম্পর্কে অস্পষ্ট ধারণাও। এসব সমস্যা দূর করে কর প্রদানে উৎসাহমূলক কর্মসূচি হাতে নিতে হবে।

অনুষ্ঠানের উন্মুক্ত আলোচনায় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার এগারজন অংশগ্রহণকারী অংশ নেয়। অনুষ্ঠানে এ আইনটি সম্পর্কে অংশগ্রহণকারীদের মাঝে পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে ধারণা দেন সংশ্লিষ্ট বিভাগে ডেপুটি কমিশনার তপন চন্দ্র দে।