সাংসদ চিনু, চাকমা রাজার উপস্থিতিতে লংগদ ঘটনার তদন্তে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগীয় কমিটির শুনানী

445

আলমগীর মানিক- ৯ জুলাই ২০১৭, দৈনিক রাঙামাটি:  গত ২ জুন লংগদু উপজেলায় সংঘটিত সহিংস ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ থেকে গঠিত পাঁচ সদস্যের উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি শুক্রবার রাঙামাটি সফর করে জনপ্রতিনিধি, সরকারি উর্ধতন কর্মকর্তাসহ পাহাড়ি সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের মতামত গ্রহণ করেছে। রাঙামাটি সার্কিট হাউজে শুনানীকালে তদন্ত কমিটির প্রধান চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার শংকর রঞ্জন সাহার নেতৃত্বাধীন তদন্ত কমিটির অন্যান্য সদস্য স্থানীয় সরকার বিভাগ চট্টগ্রামের পরিচালক দীপক চক্রবর্তী, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সদস্য মনজুরুল আলম এবং রাঙামাটির অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আবু শাহেদ চৌধুরী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এই শুনানীকালে পার্বত্য চট্টগ্রামের সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু, রাঙামাটি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমা, চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায়, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান, মানবাধিকার কমিশনের সাবেক সদস্য নিরূপা দেওয়ান, অধ্যাপক মংসানু চৌধুরী, প্রাক্তন উপসচিব প্রকৃতি রঞ্জন চাকমা, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান, পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান তদন্ত কমিটির সামনে তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করেন।

সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু বৈঠকের বিষয়ে জানান, আমরা এই ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেমন চাই না, তেমনি এ অঞ্চলে নয়নের মতো নীরিহ মোটর সাইকেল চালকদের ডেকে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যার রাজনীতি থেকেও সকল পক্ষ বেরিয়ে আসে সেই কামনা করি। ঘটনার সুষ্টু তদন্ত এবং দায়ীদের চিহ্নিত করা না গেলে এ ধরনের ঘটনা বার বার ঘটতে থাকবে। ফলস্বরূপ আমরা সকলেই শুধু পুর্নবাসনের দাবি নিয়ে সরকারকে চেপে ধরতে থাকবো। এই পরিস্থিতির উত্তরণে আমাদের সকলের এগিয়ে আসা উচিত।

অন্যদিকে, স্বাক্ষ্য দিতে আসা পাহাড়ি সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ লংগদুর সহিংস ঘটনার মাধ্যমে যারা এখানকার শান্তিপূর্ন পরিবেশ বিনষ্ট করতে চেয়েছে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণসহ সহিংস ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থদের প্রকৃত ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করে তাদের সরকারী উদ্যোগে পূর্ণবাসনের ব্যবস্থা গ্রহণের আহবান জানান। ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না ঘটে সে লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট সকল প্রশাসনকে সজাগ থাকারও পরামর্শ দেন তারা।

তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার জানান, তদন্ত কমিটি ইতিমধ্যে লংগদুর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন এবং সেখানে ক্ষতিগ্রস্থ লোকজনসহ সকলের সাথে আলাপ করেছেন। কমিটি স্বল্প সময়ের মধ্যে তদন্ত কার্যক্রম সম্পন্ন করে প্রতিবেদন জমা দিবেন। তদন্ত কমিটি লংগদু ঘটনার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ বিচার কার্যসম্পাদনে সরকারের আন্তরিকতার বিষয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ বিষয়ে যারাই জড়িত তাদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। ক্ষতিগ্রস্তদের পূর্নবাসনের বিষয়টি একটি ধারাবাহিক সরকারি প্রক্রিয়া বিধায় তাদের পরিপূর্ণ পূর্ণবাসনে সকল কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হবে। এ ক্ষেত্রে সরকারী ত্রাণ গ্রহণ করে পূর্ণবাসন প্রক্রিয়ায় ক্ষতিগ্রস্তরা যাতে সম্পৃক্ত হোন সে লক্ষ্যে জেলার বিশিষ্ট নাগরিকদের উদ্যোগী ভূমিকা গ্রহনের আহবান জানান তিনি।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরো প্রধান ।