২৪ ঘন্টা না পেরোতেই বাস্তবায়িত হলো প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

550

p-1
॥ মোঃ হান্নান ॥

২৪ ঘন্টার মধ্যে বাস্তবায়ন করা হলো প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ। শনিবার ভিডিও কনফারেন্সে রাঙামাটিবাসীর সাথে কথা বলার সময় রাঙামাটি সরকারি মহিলা কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী টিনু চিং মারমা প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছিলেন, শিক্ষক সঙ্কটের কারণে ওই কলেজের পাঠদান কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। সে সময় পাশেই বসা শিক্ষামন্ত্রীকে প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছিলেন। পাশাপাশি বাকি উচ্ছাগুলোও পুরণ করার আশ্বাস দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের সূত্র ধরেই ২৪ ঘন্টার মধ্যে তাঁর দেওয়া কথা বাস্তবায়ন করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে চারজন বিষয়ভিত্তিক শিক্ষককে বদলীর আদেশ দিয়ে রাঙামাটি সরকারি মহিলা কলেজে প্রেরণ করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের স্বারক নং ৩৭.০০.০০০০.০৬৭.০২.০১৫.২০১৫-১৪৬৭ মুলে এ আদেশ জারি করা হয়।

রাঙামাাটি মহিলা কলেজে বদলীকৃত শিক্ষকরা হলেন, হাজি মুহাম্মদ সরকারি মহসিন কলেজ হতে বাংলা বিভাগের প্রভাষক এস জাহিদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ হতে ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক ছোটন শর্মা, চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ হতে গণিত বিভাগের প্রভাষক দেওয়ান মোঃ জানে আলম এবং চট্টগ্রাম সরকারি বাণিজ্য কলেজ হতে হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মোঃ জাহাঙ্গীর।

আদেশে উল্লেখিত শিক্ষকদের আগামী ২৩ নভেম্বর তারিখের মধ্যেই বদলীকৃত কর্মস্থলে যোগদানের নির্দেশ প্রদান করা হয়।

রাঙামাটি সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে শিক্ষা মন্ত্রণালয় হতে আমার কাছে একটি প্রজ্ঞাপন প্রেরণ করা হয়। প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে চারজন বিষয় ভিত্তিক শিক্ষক পেয়ে আমি অত্যন্ত আনন্দিত, উদ্বেলিত এবং প্রধানমন্ত্রীর দ্রুত পদক্ষেপের জন্য তার কাছে আমরা চীর কৃতজ্ঞ।

তিনি বলেন, আমি নতুন যোগদান করলেও জানতে পেরেছি, শিক্ষক সঙ্কটের কারণে এই কলেজে দীর্ঘদিন যাবত পাঠদান কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছিল। প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক ইচ্ছায় এবং শিক্ষামন্ত্রী তড়িৎ পদক্ষেপে ছাত্রীরা দীর্ঘদিনের শিক্ষক সংকট থেকে মুক্তি পেতে যাচ্ছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, আমাদের কলেজে বর্তমানে আরো দু’জন শিক্ষকের শূণ্য রয়েছে। এর মধ্যে একজন ইসলামের ইতিহাস ও অন্য পদটি তথ্য প্রযুক্তি।

তিনি জানান, আইসিটি বিষয়ে আমাদের কলেজে সৃষ্টপদ নেই। যে কারণে কখনও এই বিষয়ের শিক্ষকও আসেনি। কিন্তু এই বিষয়টি বর্তমানে শিক্ষার্থীদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তা ছাড়া নতুন বিষয় হওয়ার কারণে এই বিষয়ে সবার অভিজ্ঞতাও নেই।

তিনি জানান, এর পর এতোদিন বিদ্যমান শিক্ষকদের মধ্য থেকে যারা এই বিষয়ে পারদর্শি তাদের দিয়ে ক্লাস চালানো হচ্ছিল। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, এই ধরণের অভিজ্ঞ শিক্ষকরা ইতোমধ্যে বদলি হয়ে যাওয়ায় আমরা সঙ্কটে আছি।

রোববার সন্ধ্যায় রাঙামাটিতে এ সংবাদ এলে সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজি মোঃ মুছা মাতব্বর, জেলা যুবলীগের সভাপতি ও মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক নুর মোহাম্মদ কাজল, জেলা ছাত্রলীগের আবদুল জব্বার সুজন ও সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ চাকমা তাৎক্ষণিকভাবে সাংবাদিকদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

জাতীয় সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অসংখ্য কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, প্রধানমন্ত্রী মহামূল্যবান নির্দেশনার প্রেক্ষিতে রাঙামাটি সরকারি মহিলা কলেজের শূণ্যপদে দ্রুত শিক্ষক পদায়নের জন্য আমরা আনন্দিত।

তিনি আশা করেন, এভাবেই জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ। কোন অপশক্তি বাংলাদেশের এ উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে থামিয়ে রাখতে পারবে না।

এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজি মোঃ মুছা মাতব্বর বলেন, প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল পেতে শুরু করেছে এদেশের মানুষ। তিনি বলেন, এরই প্রমান ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে শনিবার ভিডিও কনফারেন্সের এই ফসল।

তিনি বলেন, তৃণমূল মানুষের সাথে সরাসরি কথা বলে প্রধানমন্ত্রী যেসব সমস্যার কথা জেনেছেন, তার সবগুলোই বাস্তবায়ন করা হবে বলে আমরা আশা করছি। তিনি প্রধানমন্ত্রীর এ বদন্যতার জন্য তাঁকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানান।