চাহিদার কারণেই মাদকের সরবরাহ বাড়ছে : খন্দকার রাকিবুর রহমান

404

 

Photo 1
মাদকবিরোধী উৎসবের ফাইলালে উত্তীর্ণ বিজয়ী দল ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক গার্লস কলেজকে ফুল দিয়ে অভিনন্দিত করছেন মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক খন্দকার রাকিবুর রহমান ও ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

ঢাকা ব্যুরো অফিস, ২৩ জানুয়ারি ২০১৬, দৈনিক রাঙামাটি(প্রেস বিজ্ঞপ্তি) : ‘মাদকের চাহিদার কারণেই আমাদের দেশে সরবরাহ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই সরবরাহ বন্ধ করতেই হবে। মাদকের চাহিদা বন্ধে সরকারের পুলিশ, বিজিবি, কোস্টগার্ড, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পাশাপাশি সবাই কাজ করলেও চাহিদা কমানো সেভাবে সম্ভব হচ্ছে না। সমাজে মাদকের চাহিদা রয়েই গেছে। মাদকমুক্ত সমাজ গঠন না করা গেলে যুবসমাজকে কোনোভাবেই রক্ষা করা সম্ভব হবে না। মাদকের কাছে কোনোভাবেই পরাজিত হবে না যুবসমাজ।’

আজ ২৩ জানুয়ারি ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের যৌথ উদ্যোগে রাজধানীর বিএফডিসিতে সপ্তাহব্যাপী মাদকবিরোধী বিতর্ক উৎসবের এর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক খন্দকার রাকিবুর রহমান একথা বলেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এ উৎসবের শ্লোগান- ‘মাদকমুক্ত তরুণ প্রাণে, গড়বো দেশ যুক্তির গানে। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মো. আমির হোসেন।

খন্দকার রাকিবুর রহমান আরও বলেন, বিতর্ক মাদকমুক্ত সমাজে গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রাখতে সক্ষম। এ কারণেই এ ধরনের আয়োজনকে আরও এগিয়ে নিতে হবে। আজকের এই বিতর্কে যে অঙ্গীকার ও দৃঢ়তা অনুরণীত হয়েছে তা প্রতিটি পরিবারের মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে।

ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, সাইবার ক্রাইম, শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস, রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা, বেকারত্ম, সুশাসনের অভাব এবং রাজনৈতিক  প্রতিহিংসার মতো অনেক কারণই সমাজকে মাদকনির্ভর করে তুলছে। আলোকিত সমাজ গড়তে হলে এ দিকে অবশ্যই নজর দিতে হবে। তিনি আরও বলেন, সুশাসন প্রতিষ্ঠিত না হলে সমাজ থেকে মাদকের অপব্যবহার রোধ করা অসম্ভব। সুশাসন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমেই সামাজিক মূল্যবোধকে জাগ্রত করতে হবে।

সেমিফাইনালে সাউথ পয়েন্ট কলেজকে পরাজিত করে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক গার্লস কলেজ এবং সিদ্ধেশ্বরী গার্লস কলেজকে পরাজিত করে শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজ জয়ী হয়। আগামীকাল এ দুটি কলেজ গ্র্যান্ডফাইনালে মুখোমুখি হবে। প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন যোগাযোগ পরামর্শক ড. এস.এম মোর্শেদ, সাংবাদিক মাঈনুল আলম, সাংবাদিক দৌলত আরা মালা এবং মাদ্রকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক খুরশিদ আলম চঞ্চল। সপ্তাহব্যাপী মাদকবিরোধী বিতর্ক উৎসবে অংশগ্রহণকারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো হলোÑ ভিকারুন নুন নেসা স্কুল এন্ড কলেজ, সিদ্ধেশ্বরী গার্লস কলেজ, মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ, সেন্ট যোসেফ হায়ার সেকেন্ডারী স্কুল, সাউথ পয়েন্ট কলেজ, ঢাকা কমার্স কলেজ, ঢাকা ক্যান্ট: পাবলিক গার্লস কলেজ এবং শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজ।

আগামীকাল ২৪ জানুয়ারি এফডিসিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন উৎসবের গ্রান্ড-ফাইনাল ও সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করবেন। প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন ও রানার আপ দলকে পুরস্কার হিসেবে নগদ অর্থ, ট্রফি, ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট প্রদান করা হবে।

পোস্ট- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান