পুলিশের কাজের মূল্যায়ন জনগণ করবে : ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র বিতার্কিকদের জঙ্গীবিরোধী সংলাপ অনুষ্ঠানে পুলিশের মহাপরিদশর্ক একেএম শহীদলু হক

608

IGP Photo dr
ঢাকা- ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬, পুলিশের আইজিপি একেএম শহীদুল হককে জঙ্গীবিরোধী সংলাপ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ পুলিশের জঙ্গীবিরোধী কার্যক্রমে বলিষ্ট ভূমিকার জন্য সম্মাননা স্মারক প্রদান করছেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। এসময়ে পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তারাসহ বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতার্কিকরা উপস্থিত ছিলেন।

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা- ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬, দৈনিক রাঙামাটি : সরকার আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ নাগরিক সমাজের অব্যাহত বিভিন্ন উদ্যোগের কারণে দেশে জঙ্গিবাদ বিরোধী জনমত গড়ে উঠেছে। ইতোমধ্যে জঙ্গিকাযর্ক্রমকে প্রতিহত করার লক্ষ্যে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র আয়োজনে জঙ্গিবিরোধী বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও সচেতনতামূলক কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। এরই অংশ হিসেবে আজ বিকেলে পুলিশ সদর দপ্তরের সম্মেলন কক্ষে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতার্কিকদের সাথে এক জঙ্গিবিরোধী সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক জনাব একেএম শহীদুল হক বিপিএম, পিপিএম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

পুলিশের মহাপরিদর্শক একেএম শহীদুল হক বলেন, গুলশানের হলি আর্টিসানের ঘটনার কারণে বাংলাদেশ সারাবিশ্বে জঙ্গি কার্যক্রমের জন্য আলোচিত হয়েছে। এটি ছিল একটি ট্র্যাজেডি। এর ফলে উন্নয়নকর্মী, বিনিয়োগকারীদের মধ্যে ভীতি-আতংকের সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের দেশের জনগণ ধর্মপ্রিয়। তবে তারা মৌলবাদী চিন্তা করে না। তিনি বলেন, জঙ্গিদের নিয়ন্ত্রণে সফলতা এসেছে। জঙ্গিবাদী অভিযান অব্যাহত আছে এবং এক্ষেত্রে জনগণের সমর্থন রয়েছে। বিতার্কিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ভুল বুঝিয়ে, জান্নাতের পথে নেয়ার স্বপ্ন দেখিয়ে যারা মোটিভেট করতে চায় তাদের ব্যাপারে সতর্ক হতে হবে। শিক্ষার্থীদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, শিক্ষার্থী বা ব্যাচেলারদের বাড়ি দেয়ার ক্ষেত্রে কাউকে কোন প্রকার নিষেধ করা হয়নি। শুধু বলা হয়েছে, ভাড়াটিয়ার তথ্যগুলো রাখতে।

বিতার্কিকদের উদ্দ্যেশ্যে আইজিপি বলেন, অনলাইন প্রপাগান্ডা সম্বন্ধে চোখ, কান খোলা রাখতে হবে। কেউ জঙ্গির পক্ষে একটি পোস্ট দিলে, শিক্ষার্থীদের নৈতিক দ¦ায়িত্ব হবে জঙ্গির বিপক্ষে তিনটি পোস্ট দেওয়া। ছাত্র-রাজনীতি প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে আইজিপি বলেন, অতীতে যে ছাত্র রাজনীতি ছিল, এখন আর তা নেই। এখন তাদের মধ্যে কেউ কেউ ছাত্ররাজনীতিকে রোজগারের অবলম্বন মনে করে। তবে ছাত্ররাজনীতি থাকা দরকার এবং তা গঠনমূলক হওয়া উচিত। কারণ জাতীয় রাজনীতি সম্বন্ধে তারা জানবে। আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পুলিশের কাজের মূল্যায়ন জনগণ করবে।

ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর জঙ্গিবিরোধী কার্যক্রমে প্রশংসা করে বলেন, গুলশানে হলি আর্টিসানের ঘটনায় দুজন পুলিশ কর্মকর্তা জীবন দিয়ে প্রমাণ করেছে পুলিশ মানুষের বন্ধু। শোলাকিয়ায় ঈদ জামাতের পূর্বে পুলিশ যদি নিজের জীবন দিয়ে জঙ্গিদের প্রতিরোধ না করতো তাহলে হয়তো সেদিন ঈদ জামাতের পরিবর্তে অন্য কিছু ঘটতে পারতো। তাই জঙ্গীবাদ নিরসনে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে সহযোগিতা করা নাগরিক দায়িত্ব, একই সাথে জঙ্গীবাদ নির্মুল করতে গিয়ে যাতে কোন নিরাপরাধ ব্যক্তি বা তাদের পরিবার হয়রানির শিকার না হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখা জরুরী। তিনি বিতার্কিকদের উদ্দ্যেশ্যে বলেন, তরুণদের জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে শাণিত যুিক্তর কথামালায় সকল প্রকার অশুভ কাজ প্রতিহত করতে হবে। বিতর্ক চচার্র মধ্য দিয়ে তরুণদের সামাজিকীককরণ ও মুক্তবুদ্ধিচর্চা উৎসাহিত করা সম্ভব। তিনি আরো বলেন, জঙ্গী তৎপরতার অভিযোগে আর যেনো কোনো শিক্ষক-শিক্ষার্থীকে অভিযক্তু না হতে হয়, এটা আমাদের প্রত্যাশা। ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে যাতে কেউ তরুণদের আত্মঘাতী পথে নিয়ে যেতে না পারে, সেজন্য তরুণদের ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা দিতে হবে।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ন্যাশনাল ডিবেট ফেডারেশনের মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান খান। সংলাপে ইবাইস ইউনিভার্সিটি, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, প্রাইমএশিয়া  ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি, বিজিএমইএ  ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন এন্ড টেকনোলোজীসহ বিভিন্ন বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ  উপস্থিত ছিলেন।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরো প্রধান।